উল্টো ছড়া

লেবু গাছে তাল ধরেছে
আম গাছেতে জাম
হেমন্ততে বৃষ্টি ঝরে
শীত কালেতে ঘাম।

মেঘের দেশে বিড়াল থাকে
টিয়ের ডিমে হাঁস
ভোঁদড় নাচে হিজল গাছে
নদীতে হয় চাষ।

মাছ যে থাকে ঘরের ভেতর
মানুষ থাকে জলে
পশু-পাখির মুখটি বোবা
পাহাড় কথা বলে।

পাতাল থেকে সূর্য উঠে
নীল আকাশে ঢেউ
এসব কথা বলবো তোমায়
যা বলেনি কেউ।
……………………………………………

ভালোবাসি

ভালোবাসি কানে বাজা আজানের ডাক
আকাশের নীলটাও শালিন পোষাক।
ভালোবাসি ঊষাকালে কুরআনের সুর
ঘামে ভেজা খেটেখাওয়া শ্রমিক মজুর।

ভালোবাসি মসজিদে নামাজের ছবি
পশ্চিমে হেলে পড়া ডুবোপ্রায় রবি।
ভালোবাসি জিকিরের অনুপম ধ্বনি
রোজ ভোরে ঘুম ভাঙা ছোটো খুকুমণি।

ভালোবাসি আল্লাহকে চেয়ে তোলা হাত
জোনাকির জ্বলা নেবা শীতে কাবু রাত।
ভালোবাসি ভেজা চোখ ক্ষমা চাওয়া মন
বাবা-মা’কে নিয়ে গড়া সুখের জীবন।

ভালোবাসি তাহাজ্জুদে পার করা ক্ষণ
জ্যোৎস্নাতে মনে জাগা প্রিয় শিহরণ।
ভালোবাসি আল্লাহও তাকে নিয়ে গান
প্রিয়নবী রেখে যাওয়া জীবন-বিধান!
……………………………………………

ভীষণ অপেক্ষায়

সাগর নদী পাহাড়ের আজ
অনেক অভিমান
থমকে গেছে হাওয়ার গতি
পাখির কলতান।

ছুটছে নাতো নদীর স্রোতও
বইছে না তার ঢেউ
ঝরনাধারাও শুকিয়ে গেছে
হাসবে না আর কেউ।

বাগানেও ফুটবে না ফুল
আর দিবে না ঘ্রাণ
হবে না আর কাব্য কোনো
নয়তো কোনো গান।

মন ভালো নেই কারোরই আজ
চোখে শুধুই ভয়
তাইতো সবার মৌন মিছিল
বোবার পরিচয়।

তপ্ত রৌদে মাটি ফেটে
ডাকছে তুমি-আসো
ঘোমড়া মুখে আর না থেকে
মিষ্টি করে হাসো।

শ্রমিক-কৃষক বলছে সবাই
বৃষ্টি কোথায়? হায়
বৃষ্টি তুমি ফিরবে কখন?
ভীষণ অপেক্ষায়।
……………………………………………

আমরা মুসলমান

অন্য দেশে কে মরেছে? কে হারালো প্রাণ?
এসব দেখে চুপ থেকেও আমরা মুসলমান।
শকুনগুলোর কণ্ঠে শুনে মানবতার গান
বাহবা এবং তালি দিয়ে আমরা মুসলমান!

ভাই মরে যাক বোন বেডে যাক আগে নিজের জান
আপন স্বার্থ খুঁজে নিয়ে আমরা মুসলমান।
পিশাচ যখন ঈমানদারের রক্ত করে পান
তাদের সাথেই উঠে-বসে আমরা মুসলমান।

এক রশিতে “জঙ্গি” “জিহাদ” দেই মিশিয়ে টান
জিহাদটাকেই উপড়ে ফেলে আমরা মুসলমান।
বুলেট বোমার শব্দ শুনে বন্ধ করে কান
ঘরের ভিতর লুকিয়ে থেকে আমরা মুসলমান।

দ্বীনের জন্যে কী ত্যাগ আছে? কী করেছি দান?
শুক্রবারে নামাজ পড়েই আমরা মুসলমান।
ইসলাম হলো ফুলের মত দিচ্ছে না তাও ঘ্রাণ
কারণ কি আর সাচ্চা দাবি “আমরা মুসলমান?”
……………………………………………

সাক্ষ্য

স্রষ্টা কে? জানো না?
মানুষের মন
স্রষ্টার কথা বলে
রোদের কিরণ।

উঁকি দিয়ে তাকালেই
সবুজাভ ঘাস
স্রষ্টাকে তুলে ধরে
ফুলের সুবাস।

স্রষ্টাকে মনে করে
পাখিদের তান
দূরের ঐ মহাকাশও
রবের প্রমাণ।

সব কিছু মেনে চলে
তাঁর করা ছক
তাকে ডাকে ফুল পাখি
চোখের পলক।

স্রষ্টি তো করা চাই
মালিকের গান
রহিমের সাক্ষ্য যে
সবগুলো প্রাণ!
……………………………………………

উপহার

আমরা তরুণ তাই আমাদের স্বপ্ন ছোঁয়ার দিন
মানায় কি আর রাখলে বলো মুখটাকে মলিন?
এখন সময় কণ্ঠে তোলার সম্ভাবনার সুর
গড়তে জীবন ফুলের মত মিষ্টি সু-মধুর।

এসেছে ক্ষণ ছুটার রেখে যত অজুহাত
অমানিশার আধার ভেদি সূর্য হওয়ার প্রাত।
চলছে উড়ে মনের মাঝে প্রেরণার এই পাল
আজ পারিনি কী হয়েছে? পারবো ঠিকই কাল!

আমরা পারি জ্ঞানের আলোয় উদ্ভাসিত হতে
ইতিবাচক ভাবনা যত চায় থাকা লক্ষ্যতে।
চিনিনা তো ভয় কী জিনিস থামতে বাধা এলে
যোগ্যতাতে যায় এগিয়ে নয় তোষামোদ-তেলে!

আছে দেহে শক্তি সাহস; স্বপ্ন ছুঁয়ে দেখতে
জীবনখাতায় আদর্শ আর নীতির কথা লেখতে।
তরুণ প্রতীক ইতিবাচক সকল অনুভবের
তারুণ্যটা উপহার ওই মহামহিম রবের!
……………………………………………

দায় নিবে ঠিক

মিথ্যে আছে ডানে বায়ে
মিথ্যের হাজার নাম
দ্বীন নিয়ে আজ অনেক কিছু
সব তো নয় ইসলাম।

“হুজুর দিয়ে ধর্ম চেনা”
ভুল আমাদের আজ
ধর্ম দিয়েই হুজুর চেনা
বুদ্ধিমানের কাজ।

ধর্ম বুঝতে কুরআন সুন্নাহ
ব্যাখ্যাসহ জানো
যা মেনেছে সিদ্দিক ওমর
আলী আর ওসমানও।

নয়তো দায়ী ধর্ম “কখন,
কী কারা করেছে”
দায় নিবে ঠিক সেটার যেটা
ইসলামে বলেছে!
……………………………………………

অনন্য মা

ঘুমের ঘরে উচ্চ স্বরে
হঠাৎ শুনি ডাক
চোখটা খুলে ঘাড়টা তুলে
হলাম যে অবাক।

মা রেগেছে ঘুম ভেঙেছে
এখন কেন শুয়ে?
বলবো কী আর শুনছি প্রহার
মুখটা এলাম ধুয়ে।

প্রহার ভুলে বইটা খুলে
পড়তে থাকি যখন
আদর করে নামটি ধরে
আম্মু ডাকে তখন।

আম্মু ডাকে এই আমাকে
নাস্তা করার জন্য
মা-ই শাসায় মা-ই হাসায়
তাইতো মা অনন্য।

ফুলের মত স্নেহ যত
মায়াময়ী মা’র
মা ছাড়া যে এই জীবনে
ভীষণ অন্ধকার।

আম্মু ফুলে আমার ভুলে
আমার ভালো চেয়ে
খুশি আমি এমন দামি
মায়ের ছায়া পেয়ে।
……………………………………………

মৌন কেন?

মৌন কেন হক ছেড়ে আজ
পাচ্ছ কীসের ভয়?
সত্যপথে বিপদ আসা,
অস্বাভাবিক নয়।

ধৈর্য ধরো আসুক সকাল
রাতটাকে দাও যেতে
বদর জিতলে ওহুদ হারে
চূড়ান্ত জয় পেতে!

সতর্ক হও আসছে তেড়ে
সামনে-পিছে ক্ষতি
আছো কোথায় এই সময়ের
দ্বীনের সেনাপতি?

হতাশ কিংবা মন ভাঙা নয়
দৃঢ় মনোবল
আনতে পারে ঝড়ের মাঝেও
লক্ষ্যতে সুফল!

হিকমা দিয়ে সত্য বলো
অভয় নিয়ে মনে
সচেষ্ট হও রবের কাছে
নিজকে সমর্পণে।
……………………………………………

ছড়াক সবার মাঝে

জানান দিলো ব্রেকিং নিউজ
চাঁদ মামাটা হেসে
যাচ্ছে বয়ে খুশির জোয়ার
ঈদ হবে কাল দেশে।

হাজির হয় ঈদ প্রতিবারই
সাম্য-প্রীতির গানে
গরিব-ধনীর বিভেদ মুছার
উদাত্ত আহ্বানে।

হয়ে উঠে ঈদ স্পেশাল
ছোট-বড়’র মনে
সেমাই লুচি কদমবুসি
নানান আকর্ষণে।

মুমিন হাসুক শুদ্ধি নিয়ে
সকল ভালো কাজে
ঈদের শিক্ষা ঈদের খুশি
ছড়াক সবার মাঝে।