হেক্টর ও অ্যাজাক্সের দ্বৈত যুদ্ধ ॥ সন্ধি

এই কথা বলে প্যারিসকে সঙ্গে নিয়ে নগরদ্বার অতিক্রম করে এগিয়ে চললেন হেক্টর। দীর্ঘ প্রতীক্ষা ও ব্যর্থ পরিশ্রমের পর অবসন্ন কোন নাবিক যেমন সহসা দৈবপ্রেরিত অনুকূল বায়ুপ্রবাহ দর্শনে উল্লসিত হয়, তেমনি দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর দুই ট্রয়বীরকে আগত দেখে হর্ষোৎফুল্ল হয়ে উঠল ট্রয়সৈন্যরা।
যুদ্ধক্ষেত্রে অবতীর্ণ হয়েই অ্যারিথরপুত্র মেসেথিয়াসকে হত্যা করল আলেকজান্দ্রাস। অ্যারিথয়ের ঔরসে ও ফাইলোমেদুসার গর্ভে জাত মেনেসথিয়ান বাস করতেন আনী নগরে। এবার হেক্টর তাঁর বর্শার দ্বারা হত্যা করলেন ঈয়োনেউসকে। হিপ্লোলোকাসপুত্র লাইসিয়াধিপতি গুকাস দ্বৈতযুদ্ধে ভেকসিয়াসপুত্র অ্যাফিনোয়াসের স্কন্ধে আঘাত করলেন। অ্যাফিনোয়াস তখন দ্রুতগামী অশ্বসংযোজিত রথে চড়ে পালিয়ে যাচ্ছিলেন।
এইভাবে ট্রয়বীররা যখন একের পর এক গ্রীক সেনাদের হত্যা করে যাচ্ছিলেন তখন তা দেখে আর থাকতে পারলেন না দেবী এথেন। তিনি নেমে এলেন তাঁর অলিম্পাসশিখরস্থ দেবাসন থেকে। তখন অ্যাপোলোও তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করার অভিলাষে নেমে এলেন পার্গামাসের মন্দিরচূড়া হতে। তাঁর অভিপ্রায়, ট্রয়বাসীরা বিজয়ী হোক। একটি ওক বৃক্ষের তলদেশে তারা মিলিত হয়ে জিয়াসপুত্র অ্যাপোলো প্রথমে বললেন, হে গর্বোদ্ধতা জিয়াসকন্যা, কি কারণে তুমি অলিম্পাসশিখর হতে অবতরণ করেছ এই মর্ত্যভূমিতে? ট্রয়বাসীদের প্রতি তোমার কি কোন দয়ামায়া নেই? এ যুদ্ধে গ্রীকদের কি জয়ের গৌরবে ভূষিত করতে চাও? যদি তুমি একান্তই ধ্বংস করতে চাও নিঃশেষে তাহলে আমার অনুরোধ, আজকের মত যুদ্ধ বন্ধ রাখ। তারপর আবার নতুনভাবে যুদ্ধ শুরু হবে এবং ট্রয়নগরী ধ্বংস না হওয়া পর্যন্ত সে যুদ্ধ অবিরাম চলবে।
এথেন উত্তর করলেন, তাই হোক। আমার মনেও তাই ছিল আর এই কারণেই আমি মর্ত্যভূমিতে অবতরণ করেছি। কিন্তু একটা কথা আমার বল, কিভাবে তুমি এ যুদ্ধের অবসান ঘটাতে চাও?
জিয়াসপুত্র অ্যাপোলো বললেন, একক যুদ্ধে কোন গ্রীকবীরের সঙ্গে অবতীর্ণ হবার জন্য হেক্টরকে প্রথমে উত্তেজিত করব আমরা। কিন্তু হেক্টরের প্রতিদ্বন্দ্বী কোন ব্যক্তিকে পেলে লজ্জাবোধ করবে গ্রীকরা।
এ প্রস্তাবে সম্মত হলেন এথেন। তখন প্রিয়ামপুত্র হেলেনাস দেবতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে হেক্টরের কাছে গিয়ে বললেন, হে বীরভ প্রিয়ামপুত্র হেক্টর, আমি তোমার ভাই। আমার কথা শোন। এখন উভয় পক্ষকেই কিছুকালের জন্য যুদ্ধ হতে বিরত হতে বল। তারপর তুমি গ্রীকদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ বীরকে একক যুদ্ধে আহ্বান করো। আমি অমর দেবতাবৃন্দের কাছ থেকে খবর নিয়ে জেনেছি তোমার মৃত্যুর সময় এখনো আসে নি।
আনন্দবোধ করলেন হেক্টর একথায়। বর্শার মধ্যভাগ ধারণ করে ট্রয়সৈন্যদের মাঝে গিয়ে তাদের যুদ্ধবিরত করার সংকেত দান করলেন। রাজা অ্যাগামেমননও গ্রীকসৈন্যদের যুদ্ধবিরতির আদেশ দিলেন। এদিকে এথেন আর অ্যাপোলো শকুনির ছদ্মবেশে দেবরাজ জিয়াসের সেই সুউচ্চ ওকবৃক্ষের উপরে বসে আপন আপন দলভুক্ত সৈন্যদের সগর্বে অবলোকন করতে লাগলেন। উভয় পক্ষের সৈন্যগণ তখন আপন আপন ঢাল শিরস্ত্রাণ ও বর্শা হাতে বসে বইল স্থিরভাবে। পশ্চিমা বায়ুর দ্বারা তাড়িত হয়ে সমুদ্রের উপরিপৃষ্ট বিক্ষুব্ধ তার তার নিম্নদেশের অন্ধকার জলরাশি যেমন ভয়ে স্তব্ধ হয়ে থাকে তেমনি স্তব্ধভাবে বসে রইল ট্রয় ও গ্রীকসৈন্যগণ। তখন হেক্টর বললেন, হে ট্রয় ও গ্রীকসৈন্যগণ, আমার কথা শোন, আমাদের পারস্পরিক প্রতিশ্রুতিগুলোকে জিয়াস আজও কার্যকরী করে তোলেন নি এবং তার কুফল আমাদের উভয় পক্ষকেই ভোগ করতে হবে। হয় তোমরা ট্রয়দুর্গ অধিকার করবে অথবা তোমরা পরাজিত হবে। গ্রীসদেশের বীর রাজন্যবর্গ এখানে তোমাদের মাঝে উপস্থিত আছেন। তাঁদের মধ্যে যিনি হেক্টরের বিরুদ্ধে একক যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে চান তাঁকে আসতে বলুন। দেবরাজ জিয়াসকে সাক্ষী রেখে আজ আমি ঘোষণা করছি, যদি সেই গ্রীকবীর আমাকে হত্যা করতে সমর্থ হন তাহলে তিনি আমার গা থেকে বর্ম খুলে তার জাহাজে নিয়ে যাবেন। কিন্তু তিনি আমার মৃতদেহটি ট্রয়নগরীর মাঝে নিয়ে যেতে দেবেন যাতে আমার আত্মীয়-পরিজনরা যথাবিহিত আমার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারেন। আর অ্যাপোলোর কৃপায় আমি যদি বিজয় গৌরব অর্জন করি, যদি আমি সেই গ্রীকবীরকে হত্যা করতে সমর্থ হই তাহলে তাঁর দেহগাত্র হতে বর্ম খুলে ট্রয়নগরীতে নিয়ে গিয়ে অ্যাপোলোর মন্দিরে ঝুলিয়ে রাখব। কিন্তু তাঁর মৃতদেহ আমি ছেড়ে দেব যাতে গ্রীকরা যেন মৃতদেহ তাদের জাহাজে নিয়ে যেতে পারে এবং পরে হেলেসপন্ট সাগরের ধারে তাঁর স্মৃতিরক্ষার্থে এক স্মৃতিসৌধনির্মাণ করতে পারে। সেই সাগরপথে ভবিষ্যতে কেউ কখনো পাড়ি দেবার সময় হয়ত বলবে, এ হচ্ছে সেই গ্রীকবীরের স্মৃতিস্তম্ভ যিনি বহুকাল পূর্বে ট্রয়বীর হেক্টরের দ্বারা নিহত হন। এইভাবে মানুষের মুখে মুখে অক্ষয় হয়ে থাকবে আমার যশ।
গ্রীকরা সকলের হেক্টরের কথা শুনে নীরব হয়ে রইল। তারা যেমন এ প্রস্তাব লজ্জায় সরাসরি প্রত্যাখ্যান করতে পারল না, তেমনি তাতে সম্মত হবারও কোন সাহস পেল না। অবশেষে মেনেলাস উঠে দাঁড়িয়ে ক্রুদ্ধ হয়ে তাদের তিরস্কার করে বললেন, হায় মিথ্যা বাগাড়ম্বকারীর দল, তোমরা নারীদের সন্তান, পুরুষদের নও। যদি গ্রীকদের মধ্যে কেউ হেক্টরের আহ্বানে তারা সম্মুখীন না হয় তাহলে দ্বিগুণ কলঙ্কের কালিমায় অবলিপ্ত হবে আমাদের মুখ। এইভাবে নিস্তেজ নিরুত্তাপভাবে চুপ করে বসে থাকার থেকে তোমাদের মাটি ও জলে পরিণত হওয়া উচিত ছিল। আমি নিজে গিয়ে ঐ ট্রয়বীরের সঙ্গে প্রত্যক্ষ যুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব। তবে সে যুদ্ধের গতি-প্রকৃতি নিয়ন্ত্রিত হবে স্বর্গের দেবতাদের দ্বারা।
এই কথা বলে বর্ম পরিধান করে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হলেন মেনেলাস। হয়ত সেদিনই অবসান ঘটত তাঁর জীবনের যদি না অন্যান্য গ্রীক রাজন্যবর্গ তাঁকে বাধা দিতেন। রাজা অ্যাগামেমনন স্বয়ং তাঁর দক্ষিণ হস্ত ধারণ করে বললেন, মেনেলাস, জানি তুমি খুবই মর্মাহত, তথাপি ধৈর্য ধারণ করে। যে ব্যক্তি তোমার থেকে বেশি শক্তিশালী তার সঙ্গে যুদ্ধ করার কথা চিন্তা করো না। প্রিয়ামপুত্র হেক্টর একজন শক্তিশালী বীর যাকে সকলেই ভয় করে এবং তুমি নিজেও ভয় করো। যে অ্যাকেসিল তোমার থেকেও সাহসী, তিনি হেক্টরের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অবতীর্ণ হবার কথা হলে ভয়ে পিছিয়ে যান। সুতরাং তুমি বস, আমাদের গ্রীকসৈন্যরা কোন যোগ্য প্রতিদ্বন্দ্বীকে অবশ্যই পাঠাব। তিনি যত যুদ্ধপ্রিয়ই হোন, যদি হেক্টরের সঙ্গে লড়াই করে জীবিত অবস্থায় ফিরে আসেন তাহলে তাকে আর কখনও যুদ্ধ করতে হবে না, তিনি পূর্ণ বিশ্রাম লাভ করবেন।
এইভাবে মেনেলাসকে প্রতিনিবৃত্ত করলেন রাজা অ্যাগামেমনন। তখন মেনেলাসের অনুচরবৃন্দ তাঁর দেহগাত্র হতে বর্ম খুলে নিল। এবার নেস্টর উঠে দাঁড়িয়ে বললেন, সত্যই আজ বড় দুঃখময় সময় উপস্থিত হয়েছে গ্রীকজাতির জীবনে। বীর ও বৃদ্ধ নাইট পেলেউস মার্মিডনের মধ্যে ছিলেন সবচেয়ে বড় বাগী আর প্রশাসক। একবার আমি যখন তাঁর বাড়িতে কিছুদিনের জন্য ছিলাম, তিনি আমাকে প্রায়ই গ্রীকদের বংশ পরিচয়ের কথা জিজ্ঞাসা করতেন। আজ যদি তিনি থাকতেন ও শুনতেন বীর হেক্টরের সম্মুখে গ্রীকরা কেমন ভয়ে হিম হয়ে জমে আছে তাহলে কতই না দুঃখ পেতেন তিনি। দেবরাজ জিয়াস, এথেন ও অ্যালোলোর নামে শপথ করে বলছি, ফীয়াত নগরীর সন্নিকটে সেনাডন ও লার্ডোমাস নদীর মধ্যবর্তী সমভূমিতে যেদিন পাইনিয়া ও আর্কেডিয়ার জনগণ সম্মুখযুদ্ধে সমবেত হয়, যদিও বয়সে আমি খুবই তরুণ ছিলাম তথাপি সে যুদ্ধে যোগদান করতে বাধ্য হয়েছিলাম। দেবোপম বীর অ্যারিটথ্যানিয়ন রাজা অ্যারিথের বর্ম পরিধান করে অপরিসীম বিক্রমসহকারে দাঁড়িয়ে থাকেন সম্মুখ সারিতে। রাজা অ্যারিথয়কে লোকে বলত গদাধর, কারণ তিনি বর্শা বা তীরধনুক নিয়ে যুদ্ধ করতেন না, তাঁর একমাত্র অস্ত্র ছিল এক লৌহগদা যা দিয়ে তিনি শত্রুসৈন্যদের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ভেঙ্গে দিতেন। একবার সংকীর্ণ জায়গায় তাকে বেকায়দা ফেলে লাইকৰ্গসরা তাঁকে বর্শা দিয়ে বিদ্ধ করে হত্যা করে। অ্যারিথ চিৎ হয়ে পড়ে গেলে তাঁর দেহগাত্র হতে বর্মটি খুলে নেয় লাইকৰ্গসরা। এই বর্মটি কূলদেবতা অ্যারেস তাঁকে দান করেন। রাজা অ্যারিথয় বার্ধক্যে উপনীত হলে এই বর্মটি তাঁর সহকারী বীর অ্যারিথ্যালিয়নকে দান করেন। এই বর্ম পরিধান করেই অ্যারিউথ্যালিয়ন সেনাডন ও লার্ডামাস নদীর মধ্যবর্তী ফীয়ার প্রান্তরে গ্রীকদের প্রত্যক্ষ যুদ্ধে আহ্বান করেন। অন্যান্য গ্রীকরা যখন সে আহ্বান শুনে কাঁপতে লাগলেন ভয়ে, নিস্তেজ হয়ে বসে রইলেন, আমার অন্তর তখন তাঁর সঙ্গে যুদ্ধ করার জন্য উদগ্রীব হয়ে উঠল। যদিও সমস্ত গ্রীকবীরদের মধ্যে আমি ছিলাম বয়োকনিষ্ঠ তথাপি আমারই কণ্ঠে জয়মালা পরিয়ে দিলেন দেবী এথেন। আমারই আঘাতে যখন ধরাশায়ী হলেন সেই বীর তখন অনেকখানি জায়গা জুড়ে প্রসারিত হলো তাঁর দেহটি। সেদিনকার মত আজও আমি যদি বয়সে তরুণ যুবা আর আমার দেহের দিক থেকে বলিষ্ঠ থাকতাম তাহলে আজ এক সুযোগ্য প্রতিপক্ষ খুঁজে পেতেন প্রিয়ামপুত্র হেক্টর।
নেস্টরের উত্তেজনাময় বাক্য শেষ হবার সঙ্গে সঙ্গে নয়জন গ্রীকবীর উঠে দাঁড়িয়ে প্রস্তুত হলেন হেক্টরের আহ্বানকে বরণ করে নেবার জন্য। প্রথমে এগিয়ে এলেন রাজা অ্যাগামেমনন এবং তার পরে টাইডেউসপুত্র ডায়োমেডিস। তারপর এলেন সাহসের মূর্ত প্রতীক দুই অ্যাজাক্স বীর আইডোমেনেউস, মেরিওনস, ঈউমনপুত্র ইউরিপাইলাস, অ্যান্দ্ৰীমনপুত্র থোয়াস ও ওডিসিয়াস। তখন বীর নেস্টর বললেন, এবার তোমাদের ভাগ্য পরীক্ষা করে নির্ণয় করো কে যাবে যুদ্ধে। যদি সে জীবিত অবস্থায় ফিরে আসে সে যুদ্ধ হতে তাহলে অবশ্যই সে তার নিজের আত্মা ও স্বদেশের গৌরব বৃদ্ধি করবে।
তখন সেই নয়জন গ্রীকবীর এক এক টুকরো কাগজে আপন আপন প্রতীক চিহ্ন এঁকে সেই কাগজগুলো একের পর এক করে ফেলে দিলেন রাজা অ্যাগামেমননের শিরস্ত্রাণের মধ্যে। অন্যান্য গ্রীকসৈন্যগণ তখন দেবরাজ জিয়াসের উদ্দেশ্যে প্রার্থনা করতে লাগল আকাশের পানে তাকিয়ে। বলল, হে পরমপিতা জিয়াস, এ যুদ্ধের দায়িত্বভার যেন অ্যাজাক্স, ডায়োমেডিস অথবা মাইসিনার অধিপতির উপর পতিত হয়।
নেস্টর এবার সেই শিরস্ত্রাণটি ধরে নাড়া দিতেই অ্যাজাক্সের প্রতীক চিহ্নটি বেরিয়ে এল তার থেকে। প্রহরী তখন সে প্রতীকচিহ্নটি কোন বীরের নির্বাচিত তা নির্ণয় করার জন্য দেখতে লাগলেন সকলকে। অ্যাজাক্স সে চিহ্ন দেখার সঙ্গে সঙ্গে তা চিনতে পেরে আনন্দে উফুল্ল হয়ে চিৎকার করে উঠলেন, বন্ধুগণ, এ ভাগ্য আমার। আমি যুদ্ধ করব, হেক্টরের সঙ্গে, আমি কিছুমাত্র ভয় করি না তাঁকে। তোমরা সকলে নীরবে প্রার্থনা করো জিয়াসের কাছে, ট্রয়বাসীরা যেন তার কথা না শোনে, তাঁর নির্দেশ মেনে না চলে। কোন বলপ্রয়োগ বা অপকৌশলই আমাকে প্রতিহত করতে পারবে না। আমি বীরের ভূমি স্যালামিসে লালিত হয়েছি এবং কোন প্রতিকূল অবস্থাতেই আমি আমার সাহস ও বীর্যবত্তা হারাই না।
গ্রীকরা তখন শূন্য আকাশের পানে তাকিয়ে দেবরাজের নিকট প্রার্থনা করতে লাগল। বলল হে পরমপিতা, আমাদের বীর অ্যাজাক্সকে বিজয়গৌরব অর্জনের সুযোগ দাও। আর যদি একান্তই তুমি হেক্টরের প্রতি শুভেচ্ছা বা মমতাবশত তাকে রক্ষা করতে চাও তাহলে আমাদের দুজনকেই সমপরিমাণ শক্তি ও গৌরবের অধিকারী করো।
তাদের এই প্রার্থনাকালে বোঞ্জনির্মিত উজ্জ্বল বর্ম পরিধান করলেন অ্যাজাক্স। পূর্ণ অস্ত্রসজ্জায় সজ্জিত হয়ে যুদ্ধে অপ্রতিদ্বন্দ্বী রণদেবতা অ্যারেসের মত মৃদুহাস্য প্রসারিত মুখে হস্তধৃত বর্শা সঞ্চার করতে করতে এগিয়ে গেলেন বিশালকার অ্যাজাক্স। তাঁর সে মূর্তি দর্শনে যেমন আনন্দিত হয়ে উঠল গ্রীকগণ, তেমনি ভীত হয়ে উঠল ট্রয়বাসীগণ। এমনকি বীর হেক্টরের অন্তরও বিকম্পিত হতে লাগল ভয়ে। কিন্তু যেহেতু তিনিই আহ্বানকারী তাই পশ্চাদসরণ করতে পারলেন না। তাঁর প্রকাণ্ড ঢালটি তাঁর বক্ষের সম্মুখে ধারণ করে হেক্টরের নিকট এগিয়ে গেলে অ্যাজাক্স। সাত পুরু চামড়ার উপর ব্রোঞ্জের একটি স্তর দিয়ে ঢেকে এই ঢালটি নির্মাণ করেন প্রসিদ্ধ চর্মশিল্প হাইনবিসানী টাইকিয়াস। হেক্টরের নিকটবর্তী হতে তেলামনপুত্র অ্যাজাক্স বললেন, এখন জেনে নাও হেক্টর, গ্রীকদের মধ্যে কত বড় বীর আছে। যদিও সিংহহৃদয় বীরশ্রেষ্ঠ অ্যাকেলিস এখন আমাদের মধ্যে নেই এবং তিনি এখন অ্যাগামেমননের প্রতি ক্রোধবশত যুদ্ধ হতে বিরত হয়ে তার অর্ণবপোত মধ্যে কালযাপন করছেন তথাপি উপযুক্ত বীরের অভাব নেই আমাদের মধ্যে। সুতরাং যুদ্ধ শুরু করো।
হেক্টর উত্তর করলেন, হে তেলামনপুত্র মহান অ্যাজাক্স, সমরাভিজ্ঞ কোন বালক বা বালিকারূপে গণ্য করো না আমায়। যুদ্ধের রক্ত ও বিভীষিকার সঙ্গে দীর্ঘকাল যাবৎ পরিচিত ও অভ্যস্ত আমি। আমি আমার এই চর্মনির্মিত ঢালটিকে প্রতিপক্ষের গতিপ্রকৃতি অনুসারে বাম বা পান দিকে নিয়ন্ত্রিত করতে পারি এবং আমার মতে এই ঢাল নিয়ন্ত্রণ সমরকৌশলের একটি প্রধান অঙ্গ। আমি রথারোহী ও অশ্বরোহীদের সঙ্গে অবলীলাক্রমে যুদ্ধ করতে পারি এবং হস্তযুদ্ধে আমি রণদেবতার অন্তরকেও প্রীত করতে পারি। তবে আমি তোমার দেহের কোন অরক্ষিত দুর্বল অংশে আঘাত করব না, পারি তো সরাসরি প্রকাশ্য আঘাতে পরাস্ত করব তোমায়।
কথা বলা শেষ হলে অ্যাজাক্সকে লক্ষ্য করে বর্শা নিক্ষেপ করলেন হেক্টর। সে বর্শাফলক অ্যাজাক্সের ঢালের ব্রোঞ্জস্তর ভেদ করে আরো দুটি চামড়ার স্তর ভেদ করল। কিন্তু তার উপর প্রতিহত হয়ে আটকে গেল। অ্যাজাক্সও এবার বর্শা নিক্ষেপ করলেন হেক্টরকে লক্ষ্য করে। বর্শাফলক হেক্টরের ঢাল ভেদ করে তাঁর চর্মনির্মিত কটিবন্ধনীতে লাগতেই কোনরকমে সরে গিয়ে প্রাণ রক্ষা করলেন হেক্টর। তখন দুজনই দুজনের ঢাল দুটিকে লক্ষ্য করে বর্শা নিক্ষেপ করলেন। সে বর্শার আঘাতে হেক্টরের ঢালটি তাঁর দেহের উপর চাপ দিতেই হেক্টর ঢলে পড়ে গেলেন। কিন্তু মুহূর্তমধ্যে তিনি একখণ্ড বড় পাথর কুড়িয়ে নিয়ে অ্যাজাক্সের উপর নিক্ষেপ করলেন। কিন্তু সে পাথর অ্যাজাক্সের ঢালের ব্রোঞ্জের স্তরে প্রতিহত হল, ঢালটিকে ভাঙ্গতে পারল না। তখন অ্যাজাক্স আরও বড় একটি পাথর হেক্টরের উপর নিক্ষেপ করলেন। সে পাথরের আঘাতে হেক্টরের ঢালটি কতকাংশ ভেঙ্গে গেল এবং তিনি চিৎ হয়ে পড়ে গেলেন। কিন্তু অ্যাপোলো তাঁকে উঠিয়ে দিলেন। এইভাবে তারা দুজনেই দুজনকে ক্রমাগত আঘাত ও প্রত্যাঘাত করে যেতেন যদি না সন্ধ্যাকাল সমাগত দেখে দেবতা ও মানবের যৌথ নির্দেশানুসারে উভয় পক্ষের প্রহরীরা তাদের দুজনকেই নিবৃত্ত করত। এই দুজন প্রহরীর নাম হলো টলথিয়াসম ও আইডেউস। আইডেউস বলল, হে বৎসগণ, আর যুদ্ধ করো না, তোমরা দুজনেই সাহসী বীর; পরস্পরের সমকক্ষ এবং দেবরাজ জিয়াসের প্রিয়। যেহেতু রাত্রিকাল সমাগত, তোমাদের যুদ্ধ বন্ধ করাই উচিত।
অ্যাজাক্স বললেন, যুদ্ধ বন্ধের কথা হেক্টরকে বল। কারণ উনিই এ যুদ্ধ আহ্বান করেছেন। উনিই প্রথমে আমার অনুরোধ করুন, তাহলে সে অনুরোধ আমি রক্ষা করব।
তার উত্তরে হেক্টর বললেন, হে বীর অ্যাজাক্স, দৈব কৃপায় উপযুক্ত শক্তি, সাহস ও বিচারবুদ্ধি লাভ করেছ। বর্শা সঞ্চালনে তুমি অন্যান্য গ্রীকবীরদের থেকে শ্রেষ্ঠ। শুধু আজকের মত যুদ্ধ হতে বিরত হও, আগামীকাল আবার আমরা এ যুদ্ধ শুরু করব। এখন রাত্রি আসন্ন এবং এ কাল যুদ্ধের অনুকূল নয়। ইত্যবসরে তুমি তোমাদের জাহাজে গিয়ে গ্রীকদের বিশেষত তোমার স্বজাতীয় অনুচরবৃন্দের অন্তরে আনন্দের সঞ্চার করগে। আমিও আমাদের ট্রয়নগরীতে ফিরে গিয়ে যে সব নরনারী আমার জন্য প্রার্থনা করছে তাদের সান্ত্বনা দিইগে। এস এক উপহারের আদান-প্রদান করি আমরা। এই উপহার দর্শনে গ্রীক ও ট্রয়বাসীরা বলাবলি করবে পরস্পরের মধ্যে, আমাদের দুই প্রখ্যাত বীর সাহস ও শক্তিসহকারে যুদ্ধ করে এবং বন্ধুত্বের ভাব নিয়ে বিরত হয় সে যুদ্ধ হতে।
এই কথা বলে হেক্টর অ্যাজাক্সকে দিলেন চর্মনির্মিত কোষসহ রৌপ্যখচিত এক তরবারি। অ্যাজাক্স তার প্রতিদানে দিলেন নীলাভ বর্ণের এক সুরম্য কটিবন্ধনী।
এইভাবে যুদ্ধ হতে বিরত হলেন ওঁরা। চলে গেলেন আপন আপন গন্তব্যস্থলে। বীর অ্যাজাক্সের আক্রমণকে প্রতিহত করে অক্ষত অবস্থায় হেক্টরকে ফিরে আসতে দেখে ট্রয়বাসীদের মনে হলো যেন নিশ্চিত ধ্বংসের হাত থেকে অপ্রত্যাশিতভাবে রক্ষালাভ করেছে তাদের নগরী। ওদিকে অ্যাজাক্সকে দেখে উল্লাসভরে তাকে অ্যাগামেমননের নিকট সগর্বে নিয়ে গেলেন গ্রীকবাসীরা।
তারা সকলে রাজা অ্যাগমেমননের শিবিরে যেতেই একটি পাঁচ বছরের বলদ ক্রোনাসপুত্র জিয়াসের উদ্দেশে উৎসর্গ করলেন অ্যাগামেমনন। তারপর সেই উৎসর্গীকৃত গোমাংস অগ্নিদগ্ধ করে তৃপ্তিসহকারে ভোজন করলেন। অ্যাগামেমনন নিজের হাতে সেই বলির পশুদেহের একটি বিশেষ অংশ হতে কয়েকটি খণ্ড অ্যাজাক্সকে এক বিশেষ সম্মানের স্বীকৃতিস্বরূপ দান করলেন।
অতঃপর বিজ্ঞ পরামর্শদাতা বৃদ্ধ নেস্টর উঠে দাঁড়িয়ে বললেন, হে আত্রেউসপুত্র ও অন্যান্য গ্রীকবীরগণ, রণদেবতা অ্যারেসের ইচ্ছায় বহু গ্রীকসৈন্যের রক্তপাত ঘটেছে এবং তারা নিহত হয়েছে যুদ্ধে। তাদের আত্মা মৃত্যুপরীতে গমন করেছে। প্রভাতকাল আগত হলে আমরা যুদ্ধ হতে বিরত হয়ে আমাদের মৃতদেহগুলোকে গরু ও গর্দভবাহিত দ্বিচক্রযানে করে আমাদের অর্ণবপোতগুলোর অদূরে স্থূপাকৃত করে দাহ করব। তাহলে সেই সব মৃত সৈন্যদের অস্থিগুলো স্বদেশে নিয়ে গিয়ে তাদের প্রিয়জনদের হাতে তুলে দিতে পারব। সেই চিতার নিকট আমরা এক প্রাচীর নির্মাণ করব আর তার পাশে খনন করব এক বিরাট পরিখা যাতে ট্রয়সৈন্যদের কোন পদাতিক বা অশ্বারোহীবাহিনী আমাদের সহসা আক্রমণ করতে না পারে। সেই সুরক্ষিত প্রাচীর ও পরিখার মাঝে আমাদের গমনাগমনের জন্য থাকবে কয়েকটি নির্দিষ্ট দ্বারপথ।
নেস্টরের এ-কথায় হর্ষধ্বনি করে উঠল গ্রীকরা। ওদিকে ট্রয়বাসীরা এক সভা আহ্বান করলো নিজেদের মধ্যে। এ সভায় বিজ্ঞ অ্যান্টিনর উঠে দাঁড়িয়ে বললেন, হে ট্রয়বাসীগণ ও মিত্রশক্তিবর্গ, আমাকে আমার মনের কথা ব্যক্ত করার সুযোগ দাও। আজ হেলেন ও তার সকল ঐশ্বর্য আত্রেউসপুত্রদের হাতে ফিরিয়ে দাও। কারণ আমরা আমাদের প্রদত্ত চুক্তি ভঙ্গ করে যুদ্ধ করছি। আমার কথামত কাজ না করলে আমরা কখনই উন্নতি লাভ করতে পারব না।
সুন্দরী হেলেনের দ্বিতীয় স্বামী আলেকজান্দ্রাস তখন বললেন, তোমার কথা আমার পছন্দ হলো না অ্যান্টিনর। যদিও তুমি সৎ মনোভাব নিয়েই একথা বলেছ তথাপি কোন যুক্তি নেই তোমার এ কথায় মধ্যে। আমি ট্রয়বাসী ও দার্দানীয় জনগণকে একথা নতুন করে বলে দিচ্ছি, আমি যে নারীকে এখানে আনয়ন করেছি তাকে কোনমতেই প্রত্যর্পণ করব না। তবে তার আনুষঙ্গিক সকল ঐশ্বর্য এমন কি আমার নিজস্ব আরও কিছু ঐশ্বর্য তাদের হাতে দান করতে রাজি আছি আমি।
প্যারিসের কথা শেষ হতেই দার্দানাস অধিপতি রাজা প্রিয়াম শান্ত কণ্ঠে উপস্থিত সকলকে সম্বোধন করে বললেন, আজ তোমরা সকলে নৈশভোজন সমাপন করে রাত্রির মত বিশ্রাম করো, তবে সদাসর্বক্ষণ সজাগ সতর্ক প্রহরায় নিযুক্ত থাকবে। প্রাতঃকালে আইডেউসকে গ্রীক শিবিরে পাঠিয়ে দেবে। সে গিয়ে অ্যাগামেমনন ও মেনেলাসকে প্যারিসের কথা জানাবে। যে প্যারিস এই যুদ্ধের মূল কারণ তার অভিব্যক্তি তাদের জানা দরকার। তাদের সে আরও বলবে আমরা আমাদের সৈন্যদের মৃতদেহগুলো ভস্মীভূত না করা পর্যন্ত তারা যেন যুদ্ধ হতে বিরত থাকে। তারপর আমরা নতুন করে যুদ্ধ করব এবং চূড়ান্তভাবে জয় পরাজয় দেবতাদের দ্বারা নির্ণীত না হওয়া পর্যন্ত সে যুদ্ধ চালিয়ে যাব।
সকলেই রাজা প্রিয়ামের কথামত কাজ করল। নিশাবসানে আইডেউস গ্রীকদের জাহাজে চলে গেলেন। তিনি দেখলেন অ্যাগামেমনন অর্ণবপোতের অভ্যন্তরে গ্রীকগণ এক মন্ত্রণাসভায় মিলিত হয়েছে। আইডেউস বললেন, হে আত্রেউসপুত্রদ্বয়, রাজা প্রিয়াম এবং অন্যান্য মহান ট্রয়বীরগণ আমায় আপনাদের সকাশে পাঠিয়েছেন। প্রিয়ামপুত্র আলেকজান্দ্রাসের বক্তব্য আমি ব্যক্ত করব আপনাদের কাছে। আপনারা তাঁর প্রস্তাবে সম্মত হোন। আলেকজান্দ্রাস বলেছেন, তিনি যেসমস্ত ধনরত্ন আপনাদের রাজ্য হতে অপহরণ করে এনেছেন তা পুরোমাত্রায় ও তার সঙ্গে আরও কিছু আপনাদের দান করবেন। কিন্তু মেনেলাসপত্নী হেলেনকে তিনি ট্রয়বাসীদের অনুরোধ সত্ত্বেও প্রত্যপর্ণ করবেন না। প্রিয়াম আরও জানতে চেয়েছেন আমরা আমাদের মৃতসৈন্যদের দেহগুলো ভস্মীভূত না করা পর্যন্ত আপনারা যুদ্ধ বন্ধ করতে রাজি আছেন কি না। পরে আমরা যুদ্ধ শুরু করব এবং চূড়ান্ত জয়-পরাজয় নির্ণীত না হওয়া পর্যন্ত যুদ্ধ চালিয়ে যাব।
এ-কথায় অন্যান্য গ্রীকগণ নীরব থাকলেও যুদ্ধ ধ্বনিতে সতত সোচ্চার ডায়োমেডিস বলে উঠলেন আমরা এখন হেলেন বা কোন ধনরত্নের বিনিময়েই সন্ধি করব না, কারণ যেকোন এক শিশুও বলে দিতে পারবে ট্রয়জাতির পতন আসন্ন।
একথায় উল্লাস ধ্বনি দিতে লাগল গ্রীকগণ। তখন রাজা অ্যাগামেমনন দাঁড়িয়ে বললেন, গ্রীকদের উত্তর তুমি স্বকর্ণে শ্রবণ করেছ। আমারও ঐ একই উত্তর। কিন্তু মৃতদেহ দাহের ব্যাপারে আমি তোমাদের মৃতদেহগুলো যথাযথভাবে দাহ করার অনুমতি দান করছি, কারণ মৃত ব্যক্তিদের উপর কোন হিংসাভাব পোষণ করা উচিত হবে না। অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার যথাযথ অনুষ্ঠান হতে তাদের বঞ্চিত করা উচিত নয়। দেবরাজ জিয়াসকে সাক্ষী রেখে আমরা এই প্রতিশ্রুতি দান করছি।
এই বলে তাঁর হস্তধৃত রাজদণ্ডটি দেবতাদের উদ্দেশ্যে ঊর্ধ্বে উত্তোলিত করলেন রাজা অ্যাগামেমনন। ইলিয়াম নগরীতে ফিরে গেলেন আইডেউস। ট্রয়বাসীগণ তখন এক মন্ত্রণাসভায় মিলিত হলে গভীর আগ্রহের সঙ্গে প্রতীক্ষা করছিল আইডেউসের জন্য। আইডেউস তাদের কাছে সব কথা ব্যক্ত করতেই তারা মৃহদেহগুলো এক জায়গায় স্থূপীকৃতি করতে লাগল এবং তাদের মধ্যে একদল লোক অগ্নিসংযোগের জন্য কাষ্ঠ আহরণ করতে লাগল। গ্রীকসৈন্যদেরও একটি দল মৃতদেহ সংগ্রহ এবং আর একটি দল কাষ্ঠ আহরণ করতে লাগল অগ্নিসংযোগের জন্য।
সূর্য যখন ওসিয়ানাস সমুদ্রের শান্ত বক্ষ হতে ধীরে ধীরে পূর্ব দিগন্তে উত্থিত হয় মর্ত্যভূমির উপর কিরণজাল বিস্তার করছিল তখন উভয় পক্ষ আবার সম্মিলিত হলো রণপ্রান্তরে। তারা স্বপক্ষীয় মৃহদেহগুলো ঠিকমত চিনতে পারছিল না। তবু তাদের রক্তাক্ত ও ক্লেদাক্ত অঙ্গগুলো ধৌত করার সময় অশ্রু বিসর্জন না করে পারছিল না। অশ্রুপাতরত অবস্থাতেই তারা একটি মালবাহী শকটের উপর মৃতদেহগুলো তুলে রাখতে লাগল। রাজা প্রিয়াম আদেশ দিয়েছিলেন কোন সৈন্য যেন মৃতদেহ অপসারণের সময় উচ্চৈস্বরে রোদন না করে। তাই তারা নীরবে কাজ করে যাচ্ছিল। গ্রীকগণও এইভাবে নীরবে তাদের পক্ষের মৃতদেহগুলো অপসারিত করছিল। তারপর উভয় পক্ষের লোকেরাই স্বপক্ষীয় মৃতদেহগুলো প্রজ্জ্বলিত চিতানলে ভস্মীভূত করার পর ফিরে গেল আপন আপন শিবিরে।
শবদেহের কাজ সম্পন্ন হবার সঙ্গে সঙ্গে গ্রীকগণ সেই চিতাপার্শ্বে একটি প্রাচীর নির্মাণ ও গভীর পরিখা খননের কাজ ব্যাপৃত হলো। প্রতুষ্যের আলো তখনো ভালভাবে ফুটে ওঠে নি।
গ্রীকরা যখন এইভাবে প্রাচীর নির্মাণ ও পরিখা খনন করছিল তখন সুদূর স্বর্গলোকে জিয়াসের পাশে উপবেশনরত দেবতাবৃন্দও তা অবলোকন করছিলেন। ভূমিকম্পের দেবতা পসেডন একবার দেবরাজ জিয়াসকে বললেন, হে পিতা জিয়াস, মর্ত্যের কোন মানুষ আর স্বর্গের দেবতাদের কোন উপদেশ বা পরামর্শ গ্রহণ করবে না। দেখ দেখ গ্রীকরা কেমন এক দুর্ভেদ্য প্রাচীর নির্মাণ করছে। এবার হতে এই প্রাচীরের যশোবার্তা প্রভাতের আলোর মত এমন সুদূর বিস্তৃত হবে যে মর্ত্যলোকের মানুষের মুখে মুখে শুধু এই প্রাচীরের কথাই কথিত হবে। আমি নিজে ও ফীবাস অ্যাপোলো দুজনে মিলে যে প্রাচীর বহু কষ্টে লাওমীডনের জন্য নির্মাণ করেছি তার কথা কেউ বলবে না। অথচ এই প্রাচীর নির্মাণের জন্য দেবতাদের উদ্দেশ্যে কোন বলি উৎসর্গ করেনি গ্রীকরা।
একথায় অসন্তুষ্ট হয়ে জিয়াস বললেন, হে ভূকম্পনকারী দেবতা, কি বলছ তুমি? তোমার থেকে কম শক্তিশালী কোন দেবতা ভীত হয়ে উঠতে পারে তাদের এ কাজে। কিন্তু তোমার যশ ত প্রভাতের আলোর মত অনন্ত বিস্তৃত। গ্রীকরা যখন স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করবে তখন তুমি সহজেই তাদের এই প্রাচীর ভূমিস্যাৎ করে সমুদ্রে মিশিয়ে দিতে পার এবং ঐ বেলাভূমিকে পুনরায় বালুকারাশিতে পরিপূর্ণ করে তুলতে পার। তখন দেখবে গ্রীকনির্মিত ঐ প্রাচীরের কোন চিহ্নই অবশিষ্ট থাকবে না।
এইভাবে দেবতাগণ যখন আলোচনায় রত ছিলেন তখন সূর্য অস্ত গেল। সূর্য অস্ত যাবার সঙ্গে সঙ্গে গ্রীকদের কাজ সমাপ্ত হলো। তারপর তারা তাদের শিবিরে গিয়ে গো বধ করে নৈশভোজ প্রস্তুত করল। জেসনপুত্র ইউনেউস কর্তৃক প্রেরিত কয়েকটি জাহাজ সুদূর লেমনদ্বীপ হতে মদ্য বহন করে এনেছিল তাদের জন্য, সেই সব জাহাজ হতে মদের বোতলগুলো বহন করে নিয়ে এল গ্রীকরা বিভিন্নভাবে। এক বিরাট ভোজসভার আয়োজন করে পান ও উৎসবে মত্ত হয়ে রইল সারা রাত্ৰব্যাপী। ট্রয়নগরীতে ট্রয়বাসীরাও তাই করতে লাগল। কিন্তু মুহমূহু বজ্র গর্জনের মাধ্যমে তাঁর ক্রোধ প্রকাশ করতে লাগলেন দেবরাজ জিয়াস। তাদের ধ্বংসের কথাও বারবার চিন্তা করতে লাগলেন তিনি। সেই বজ্রধ্বনি শুনে এক অজানিত ভয়ে মলিন হয়ে উঠল উৎসবমত্ত অপরিণাশদশী মর্তমানবগণ। তাদের কম্পিত পানপাত্র হতে পানীয় মদ্য পড়ে যেতে লাগল বারবার। তারা তখন দেবরাজের নিকট মদ্য উৎসর্গ করল এবং তার ফলে নির্বিঘ্নে পান ও ভোজন সমাপ্ত করে নিবিড় বিশ্রাম ও নিদ্রাসুখ উপভোগ করতে লাগল।