রওশন আরা বাঁশি ১৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৭১ সালে মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলাধীন রাজকান্দি পাহাড়ঘেঁষা কোনাগাঁও (খিল) গ্রামে এ এক সম্ভ্রান্ত মণিপুরি মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন ৷
এবারের অমর একুশে ২০২০ বইমেলায় তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ “সমুদ্রের কাছে চিঠি” ঘাস প্রকাশন থেকে প্রকাশিত হয়েছে। এ নিয়েও লেখক, অনুভূতি বই প্রকাশের ভাবনা কী? এসব বিষয় নিয়েই কবি রওশন আরা বাঁশির মুখোমুখি হয়েছেন তরুণ লেখক রফিকুল ইসলাম জসিম৷

রফিকুল ইসলাম জসিম : সম্প্রতি আপনার বই প্রকাশিত হলো৷ আপনার অনুভূতি জানতে চাই৷
রওশান আরা বাঁশি : অনেক দিনের স্বপ্নের বাস্তব রূপ দেখে আসলেই ভালো লাগছে। আমার শখের বসে লেখা কবিতাগুলো আর মনের ভাবনাগুলো পাঠককূলের কাছে পৌঁছে দিতে পেরেছি বলে ব্যপারটা খুবই আনন্দের বিষয়৷

রফিকুল ইসলাম জসিম : বই প্রকাশের সিদ্ধান্তে উপনীত হলেন কীভাবে?
রওশান আরা বাঁশি : প্রথম প্রথম শখের বসে কবিতা লেখা শুরু করি, তাই বই প্রকাশের কোনো চিন্তা ভাবনা ছিলোনা। পরবর্তীতে সকল কবিতা এক মলাটের ছায়ায় নিয়ে আসার ইচ্ছা থেকেই বই প্রকাশের সিদ্ধান্ত।

রফিকুল ইসলাম জসিম : কবিতাই কেন লিখলেন? ভাব প্রকাশের জন্য শিল্পের আরও তো মাধ্যম আছে।
রওশান আরা বাঁশি : কবিতার চরণে দু’এক লাইনে যত নিপুনভাবে মনের ভাব প্রকাশ করা যায় তা আমি অন্য মাধম্যে পাইনি। তা ছাড়া মনের আবেগ থেকে যা কথায় ব্যক্ত করা যায় তার সারাংশ কবিতায় পুর্ণভাবে ফুটে ওঠে।

রফিকুল ইসলাম জসিম : পাণ্ডুলিপি গোছানোর ক্ষেত্রে কোন কোন বিষয়কে গুরুত্ব দিয়েছেন?
রওশান আরা বাঁশি : সাধারনত বিভিন্ন ধরনের কবিতা লিখেছি।তবে পান্ডুলিপি গোছানোর ক্ষেত্রে আমার পছন্দের কবিতাগুলোর প্রাধান্য দিয়েছি তাছাড়া ছোটদের সহ সকল শ্রেণীর পাঠকের গ্রহনযোগ্যতার কথা মাথায় রেখেছি।

রফিকুল ইসলাম জসিম : বইটি প্রকাশ করতে প্রকাশক নিয়ে জটিলতায় পড়তে হয়েছিলো কি?
রওশান আরা বাঁশি : ঘাস প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী নাজমুল হক নাজু ভাইয়ের পুরোপুরিভাবে সহযোগিতা পেয়েছি, প্রকাশ বিযয়ক কোনো জটিলতায় পরতে হয়নি বরং প্রকাশ কার্য আরো সহজতর হয়েছে।

রফিকুল ইসলাম জসিম : বাংলাদেশের মণিপুরি মুসলমানদের প্রথম প্রকাশিত বইয়ের লেখক হিসেবে নিজে কি মনে করেন?
রওশান আরা বাঁশি : এটি একবারের জন্যেও আমার মাথায় আসেনি যে আমি বাংলাদেশের মুসলিম মণিপুরিদের মধ্যে প্রথম নারী কবি যার কবিতার বই প্রথম প্রকাশ হয়েছে বরং আমার বই প্রকাশের সাথেও আমার অগ্রজ মণিপুরি লেখকবৃন্দ।

রফিকুল ইসলাম জসিম : নিজের লেখার প্রতি আত্মবিশ্বাস কতটুকু?
রওশান আরা বাঁশি : একজন লেখকের অনুপ্রেরণার মূল শক্তি হচ্ছে পাঠকের ভালোবাসা বা গ্রহনযোগ্যতা। আমার লেখাগুলো যেভাবে পাঠকপ্রিয়তা অর্জন করতে পেরেছে সেটাই আমার আত্মবিশ্বাসের মুল উৎস।

রফিকুল ইসলাম জসি: অনেকে বলেন লেখার ক্ষেত্রে প্রস্তুতির প্রয়োজন হয়। সেক্ষেত্রে আপনারা প্রস্তুতির কথা জানতে চাই।
রওশান আরা বাঁশি : একজন নবীন কবি হিসেবে আমি সবসময় আমার প্রিয় লেখকদের লেখা পড়ি। আমার ভিতরের কবিসত্বাকে জাগিয়ে তোলার জন্য সেইসব বই আমাকে পরিপুর্ণ করে তোলে।

রফিকুল ইসলাম জসিম : অধিকাংশ লেখক বইমেলাকে কেন্দ্র করে বই প্রকাশ করে, বিষয়টিকে আপনি কীভাবে দেখেন?
রওশান আরা বাঁশি: আমাদের দেশে বইমেলা একটি প্রাণের উৎসব।সারাবছর বই বেচা-কেনা থাকলেও বই তার হার বেড়ে যায়। অনেক লেখক বইমেলা কেন্দ্রিক বই প্রকাশ করে বাংলা সাহিত্যকে করে যাচ্ছেন সমৃদ্ধ। এটি আমার কাছে ভালো লাগার একটি বিষয়।

রফিকুল ইসলাম জসিম : সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।
রওশান আরা বাঁশি : আপনাকেও।