রাম রহিমের দাঙ্গা

ভাতের হাঁড়ি গড়াগড়ি
তেলের শিশি ভাঙ্গা
তবু দাদা শেষ হলোনা
রাম রহিমের দাঙ্গা।

খালি কথায় পেট ভরেনা
ক্ষুদার জ্বালা মস্ত
আমরা শুধু উপোষ থাকি
তোমরা চিবাও গোস্ত।

মায়ের মুখে ভাত জোটেনা
দুধের শিশু কান্দে
তবুও দেখি আমলা গুলো
মজমা করে চান্দে।

কিসের ফাঁসি বিষের বাঁশি
জীবন কেন মাংগি
তারচে চলো সবাই মিলে
ইটের খোয়া ভাঙ্গী
…………………………………………..

কয়লা

কেউ চায় তেল গ্যাস
কেউ চায় কয়লা
সবকিছু খেয়ে ওরা
ফেলে যাবে ময়লা।

তুমি আমি দেশ চাই
মা আর মাটিকে
তবে কেন ডেকে আনি
ভিনদেশী পাটিকে ?

দুধ বেচে মদ খাওয়া
আমাদের স্বভাবে
নেতা ফেতা ধমকায়
থাকি তাই অভাবে।

আমাদের তেল গ্যাস
আমাদের কয়লা
লুটে নিতে দেবনাকো
এই দাবি পয়লা।
…………………………………………..

হুংকার

হাত খালি পেট খালি
জোড়াতালি সংসার
জীবনের মায়া ছেড়ে
চলো দেই হুংকার।

চাল নাই ডাল নাই
দেশে নাই শান্তি
ধারাপাত মিলে নাকো
শুধু ভুল ভ্রান্তি।

জীবনের জ্বলছাপে
সয়াবিন ডালডা
কবে থেকে সুখ খুজি
ভুলে গেছি সালটা।

আর কোন পথ নেই
পিঠ ঠেকে দেয়ালে
দেশ নিয়ে শেষ খেলা
খেলে যায় শেয়ালে।
…………………………………………..

চান্দি গরম

সুধা ভাতে ক্ষুধা মারি
অনাহারে কান্দি
বাজারের কাছে গিয়ে
তেতে ওঠে চান্দি।

মাঝরাতে মনে হয়
রাজপথে ছান্দি
ঘুষখোর কোটিপতি
ঠুঁটি ধরে বান্দি।

জোট দেখি ভোট দেখি
নোট দেখি উড়তে
আজো দেখি চ্যালাদের
বুক ফুলে ঘুরতে।

দেখে দেখে ঘোর লাগে
চোখে দেখি আন্ধা
আর কত বাঁকি দাদা
মনে লাগে ধান্ধা।
…………………………………………..

কানাবগী

কানাবগীর ডিম ফোটেনা
কেমনি হবে ছাও ?
ভাঙ্গা থালা ভাত জোটেনা
আলুর ছানা খাও।

চাল ফুরালো ডাল ফুরালো
বেবাক তোরা খালু
তোদের পেটে কোর্মা পোলা
আমরা খাবো আলুু ?

কাকের ঘরে কোকিল ঘোরে
উকিল করে জেরা
কাক কোকিলের মিলন হলে
থাকবে নাকো এরা।

কলির যুগে আর হবেনা
দুই সখিনার মিল
উচিৎ কথা কইলে মামা
আমরা খাবো কিল।
…………………………………………..

গ্যাস

দ্যাশ বেচি গ্যাস বেচি
শ্যাষ করি ক্যাশ্টা
সবখানে হাহাকার
বাঁচেনারে দ্যাশ্টা।

গ্যাস খাই দ্যাশ খাই
পেট তবু ভরেনা
গদি পেয়ে নদী খেয়ে
কেউ তবু সরেনা।

যায় দিন ভালো নাকি
আসে দিন মন্দ
অনাহারে ভুলে গেছি
দলাদলি দ্বন্দ্ব।

লাঠি লগি বেঁচে অছে
গুলি বোমা জব্দ
দাদা আছে দিদি আছে
নেই কারো শব্দ।
…………………………………………..

লড়াকু

ছড়া শুনে শোষকের
চোখ ছানা বড়া হয়
ছড়া লিখে জালেমের
টুঁটি চিপে ধরা হয়।

ছড়া শুধু কড়া নয়
টক ঝাল মিষ্টিও
ছড়া আনে সমাজে
শান্তির বৃষ্টিও।

সৃষ্টির বেদনায়
ছড়া লেখে ছড়াকু
পাঠকেরা ছড়া পড়ে
হয়ে যায় লড়াকু।
…………………………………………..

জয়

রান্নাঘরে কান্না শুনি
হতভাগী গিন্নীটার
গরম পানির বোতল চুষে
পেট ভরেনা তিন্নিটার।

ভাঙ্গা ঘরে নাঙ্গা বাবার
যক্ষাতে হয় জীবন ক্ষয়
তবু আমি হাল ছাড়িনা
যুদ্ধে এবার করবো জয়।

মায়ে আমার গতর ঢাঁকে
ছেঁড়াছুটা সাত তালিতে
বেঁচে থাকার স্বপ্ন খুজি
অবুঝ খোকার হাত তালিতে।

ধরতে কিছু উড়তে গিয়ে
আকাশ থেকে ভেঙে পড়ি
বাস্তবতায় হৃদয় ঘঁষে
নতুন আরেক জীবন গড়ি।
…………………………………………..

হুজুগে

কেউ যায় ক্ষমতায়
কেউ থাকে সুযোগে
রাজনীতি করে সব
মিছামিছি হুজুগে।

দেশ ছেড়ে যায় কেউ
ভিনদেশী সাজতে
কাজ কাম করে কিছু
খেয়ে পরে বাঁচতে।

বড়লোক হবে কেউ
থাকে সেই সুযোগে
জনগন ধোকা খায়
বোকা হয় হুজুগে।
…………………………………………..

এইতো সময়

এই তো সময় লড়াই করার
যুদ্ধ এবং ঘরছাড়ার
এইতো সময় শোষক এবং
রাজার গালে চড় মারার।

এইতো সময় স্বৈরাচারের
মুখে কালি চুন করার।
সবচে এখন ভালো সময়
যোগ বিয়োগ ভাগ গুন করার।

এই সময়ে ঘরের ভেতর
বন্দী থেকে লাভটা কি
দাদার পোষা দালাল গুলোর
আসল মনের ভাবটা কি ?
…………………………………………..

বিটিভির খবর

দিন যায় মাস যায়
নেতা যায় কবরে
সব কথা জানা যায়
বিটিভির খবরে।

ভোটারেরা বসে থাকে
ভোট দিবে কাহাকে
অবশেষে পেলো তারা
নারায়ণ সাহাকে।

নারায়ণ নেতা হয়ে
ঢোল দিল শহরে
দেশবাসি যোগ দিল
তার গাড়ি বহরে।

ধুমধাম করে নেতা
যেই নিল ক্ষমতা
সেই থেকে ভুলে গেলো
সব মায়া মমতা।
…………………………………………..

আকাল

মানুষ মরে অনাহারে
আকাল দিছে হানা
কওতো চাচী কেমনি বাঁচি
দেশের তলা কানা।

নুন জোটেনা তেল জোটেনা
পান্তা ফুরায় শেষে
তবু রাজা বুক ফুলিয়ে
ঘোরেন সারা দেশে।

নেতার মুখে কুলুপ মারা
রাজার চোখে ছানি
প্রজার ঘরে শুণ্য হাঁড়ি
কলসিতে নেই পানি।

মায়ের কোলে দুধের শিশু
ক্ষুধার চোটে কান্দে
আমরা যেন অটকে গেছি
ইঁদুর ধরা ফান্দে।
…………………………………………..

গজবের আলামত

ধান ফলে বাম্পার
চাল তবু চড়া দাম
মহাজন চুষে খায়
চাষীদের ঝরা ঘাম।

দিন যায় বাড়ে আরো
মানুষের হাহাকার
চারিদিকে খাই খাই
মরুভূমি সাহারার ।

দুর্নীতি থামেনাকো
ঘুষ খায় সালামত
দেখে সব মনে হয়
গজবের আলামত।

যারা কয় বড় কথা
তারা থাকে ধান্দায়
মোনাজাত করে শুধু
মজলুম বান্দায়।
…………………………………………..

গরম হাওয়া

পল্টনে হয় মশাল মিছিল
মগবাজারে ধাওয়া
রাজনীতিতে বইছে এখন
হালকা গরম হাওয়া।

ইলিশ পেলে পুলিশ খুশি
বগল বেজে খাওয়া
কোট কাচারী সবখানে তাই
দিচ্ছে মামা দাওয়া।

আম জনতার নাই ক্ষমতা
নাইকো চাওয়া পাওয়া
সত্যকথা বলতে গেলে
জেলখানাতে যাওয়া।

স্বৈরাচারের ঐরাবতে
দেশ জনতা যাত্রী
তোমার খোকা জাগলে মাগো
কাটবে আধাঁর রাত্রী।
…………………………………………..

কত ধানে কত চাল

কন্ দেহি চাচা মিয়া
কত ধানে কত চাল
দশ টাকা কেজি দরে
কে কিনেছে গতকাল?

আজ যার বড় গলা
কাল তারা ছিল কই
কথা ছিল কাজ দিবে
আবশেষে দিল কই?

কাজ নাই কাম নাই
দেশ জুড়ে হাহাকার
জনতার বুকে ঝড়
মরুভূমি সাহারার।

ডাক দিছে লড়াইয়ের
জোট বেঁধে লড়বেন
তা না হলে চাচা মিয়া
এভাবেই মরবেন?
…………………………………………..

হক কথা বললে

হক কথা বললে
সৎ পথে চললে
বাতিলের সাথে হয় দাঙ্গা।
অন্যায় দেখলে
প্রতিরোধ করলে
পিচঢালা পথ হয় রাঙ্গা।

চুপচাপ থাকলে
অবিচার ঢাকলে
ইবলিশ হয়ে ওঠে চাঙ্গা
আজ তাই দরকার
জনতার সরকার
জালিমের বিষদাঁত ভাঙ্গা।