তুমি

শিরোনামে চাই তোমায়,
মাঝখানে আছো তুমি,
আমি চাই শেষেতে ও থাকো।

সারাক্ষণ তোমা মাঝে
ডুবে থাকি আমি,
আমি চাই তোমা মাঝে ও রাখো।

বিরহ-ব্যাথাতে,
দিবানিশি কথাতে,
কিছু যাদু রাখিও ছড়িয়ে।

একেলা ক্ষণেতে,
আনমনা মনেতে,
হাত দুটো দিও তুমি বাড়িয়ে।

কথা-গান-কবিতা,
তুমি আমার সবিতা,
তুমি স্বপ্ন আর তুমি আশা।

তুমি সুখ,তুমি দুখ,
তুমি আলো,তুমি কালো,
তুমিই আমার এক জীবন ভালবাসা।
…………………………………………..

চাঁদে যাবো

মেঘে মেঘে উড়ে চল না চাঁদের দেশে যাই
কিছু আলো কুড়িয়ে আনি,ছুঁবো বলে তাই।
যদি থাকিস পাশে,চাঁদটাও হাতের নাগালে,
বালুকণা ও ছুঁতে পারবো না,তোকে হারালে।
তুই থাকলে পাশে সব কিছু পারি,
মিছেমিছি তুই দিস কেন ঝাড়ি?
আমি হারালে বুঝবি,
চক্ষু মেলে খুঁজবি।
পাবিনা যেই কাঁদবি,
একলা ক্যামনে থাকবি?
দিশেহারা হই হারানোর কথা কানে ভাসলে,
আমি ভুলে যাই ব্যথা-দুঃখ শুধু তুই হাসলে।
এমন ভাবে থেকে যাস পাশে,
যা যাই বলুক, কি যায়-আসে।
নিন্দা না থাকলে প্রেম হয় নাকি!
প্রেমে নিন্দা, ভয় সবকিছু মেকি।
…………………………………………..

তুমি কি প্রেম!

তোমার প্রেমে মাতাল হলো সিগারেট,
তাই ঠোঁটের উষ্ণতা শুধু তারই প্রাপ্য।
নিমেষেই শেষ করে দাও ভালবাসা,
ধোঁয়া আর ছাইয়ে শুরু নতুন কাব্য।
কি আজব! কাহিনী রটাও।
প্রেম পায় ঘৃণা,আলিঙ্গন শেষে।
বোঝেনি সেও,বুঝেছে পরে।
এসেছো প্রেমের নামে ছদ্মবেশে।
জীবনের প্রতিপদে তোমা দিয়ে ঢাকা,
তুমি কি প্রেম! নাকি ছলনা?
তোমা মাঝে বিচরণ, চেনে না মন তবু।
হায়রে ! তোমাতেও মন তবু গলেনা।
প্রেম তুমি কেন আসো? জীবনের তরে,
জীবন মাঝে নয় কেন? কেন অসহায়?
তোমাকেই ঘিরে বাঁচা, তুমি কি তবে?
তোমার কাছেই মন জানতে চায়।
…………………………………………..

রাত জাগা পাখি

এখানে সবাই ঘুমিয়ে পড়েছে
ভোরের বাকি অনেক।
রাতজাগা পাখি জেগে আছি
আকাশে তারা গুটি কয়েক।
শনশন বাতাসের ধ্বনি
কে হৃদে বাজায় বাঁশি?
আঁধারের মাঝে হাতছানি কার?
এটা কি চাঁদের হাসি?
মাঝেমাঝে দেখি,
ডালে দুটো পাখি,
বাসা নেই বলে,হারায় তারাও
রাতের আঁধারে।
বলে দাও মন,ভালবাসো গো কি?
ব্যথা কেন?আজ হৃদয় মাঝারে।
দিবষ রজণী কার পাণে তুমি?
কাকে নিয়ে দেখো স্বপ্ন?
তোমাকেই বলি মন;
তুমি কোন ধ্যানেতে আজ মগ্ন?
…………………………………………..

যদি দ্যাখা হয় তবে

হঠাৎ কুড়ি বছর পরে-
পথের দ্যাখায় আমাদের দ্যাখা হবে;

হয়তো আমি সেদিন এমনই রবো,
শুধু তুমিই অনেকটা বদলে যাবে।

পথের ধুলোরা তোমার পদ-ছোঁয়ায়
বেঁচে উঠবে নতুন উষ্ণতায়,

আমার ছোঁয়ায় বাঁচতে গিয়েও তারা,
সেদিন হঠাৎ হয়তো আবার মরবে।

হয়তো সেদিন জৈষ্ঠ্য মাস হলেও
খরতা শেষে বৃষ্টি ফোটা ঝরবে,

হয়তো তখন মরা গাছটাতেও,
নতুন করে কদম ফুল ফুটবে।

গাছের ফাকে শালিক বসে শত,
গানের সুর বলবে কথা শত।

তোমার পানে তাকিয়ে তখন তারা,
হয়তো হবে অনেক দিশেহারা।

কথার সুরে বলতে গিয়ে কিছু,
অজানা ব্যথায় নিশ্চুপ হয়ে রইবে।

হয়তো কখনো গানের সুরে-সুরে,
তোমায় তখন পিছনের দিকে ডাকবে।

ওদের হাজার আকুতির পরেও, তোমায় বলি,
তবুও তুমি তোমার পানেই চলবে।

এদিকে তোমার কোন পিছুটান নেই,
যার জন্য এ পানে তুমি চাইবে।

কেন মিছেমিছি তোমার পথে,
অজানা কোন পিছুটান বাঁধবে।
…………………………………………..

অনন্তহীন পথ চলা

পথিক তোমার পথের মাপ দিও,
তোমার পথেই পা মেলাতে চাই।
আমি দূর-অজানায় চলেছি হেঁটে
পথিক তোমার সঙ্গে যেতে চাই।
পথিক তোমার পথের ঠিকানা দিও
আমি তোমার আগেই যাবো হেথা,
হেয়ালে কুড়োবো মুক্ত-ঝিনুক শত
জমাবো আমি হাজারও স্বপ্ন-কথা।
পথিক চলো যাই না হারিয়ে দু’জন,
সঙ্গে শুধু পথের ধুলোরা রবে।
পথিক তোমার দুখের বোঝা ভারি!
আমার সাথে ভাগাভাগি করবে?
পথিক হাঁটি চিরচেনা সেই পথে,
যে পথে আছে ব্যথা-বেদনা ভরা,
আমার পথেই হাঁটবে চলো পথিক,
দুঃখ পেয়েও হবো না দিশেহারা।
পথিক চাই না সুখের মোহরা,
চাই না কোনো আনন্দ পশরা,
পথিক রবে চিরকালের সঙ্গী,
হবো পথের ঠিকানায় বন্দি।
যাইবা নাকি পথিক?
চলো যাই যেদিক টা সঠিক।
…………………………………………..

প্রেমের মরা

অসম্ভব সুন্দর লাগছে
যেদিন বলেছিলে,
সেদিনই মরে গেছি
আমি তোমার ভালবাসায়।
আচ্ছা,
ভালবাসায় মরে কিভাবে?
যেদিন জানতে চেয়েছিলে
সেদিন মরা থেকে আবার বেঁচে ফিরেছি।
উত্তর চাও তো?
দেবো,আগে ভালবাসো,
এমন ভালবাসা দাও
যা পৃথিবীতেই নেই,
তবে না হাসি মুখে মরতে ও পারবো।
…………………………………………..

আগন্তক

মনের মধ্যে থাইকা তুমি
মনের খবর রাখো না,
আমি পরশী হইয়া
খবর নিতে আসি।

তুমি জলের মাঝে থাইকা পরেও
জলের উপর ভাসো না,
আমি আসমান হইতে নাইমা
তোমার পাণে ভাসি।

তুমি সিগারেট হইয়াও
ধোয়ার খবর রাখো না,
আমি আগুন হইয়া ও
খবর নিয়া যাই।

তুমি ফুলের মাঝে থাইকা পরেও
ফুলের সুবাস পাও না,
আমি ভ্রমর হইয়া ও
গন্ধ কেন পাই?
…………………………………………..

উত্তরহীণ প্রশ্ন

আগুন ঝরা… ফাগুনে,
তুমি এলে কুসুম কাননে।
চেয়েছিলে… মালা,
মনে বড় জ্বালা।
মনের বাগিচায় ফুটেছিল কত ফুল,
নিরবে ঝরে গেল;দেখেনি আমি ভুল।
আমার হাতখানি সেদিন ধরিয়া,
বলেছিলে প্রেম দাও হৃদয় ভরিয়া।
হৃদয়ের বাতায়নে,
রেখেছি যতনে।
শুধুই তোমার নাম,
জানি না পরিনাম।
প্রেম কি ভালবাসা,দুটি মনের একটি আশা।
প্রেম কি বেদনা, নাকি চিরায়ত বহমান হতাশা।
আমি খুঁজি নি উত্তর,খুঁজি নি সে ভাষা।
…………………………………………..

অব্যক্ত ভালবাসা

যেদিন চৈত্রের ভরা দুপুর
তুমি এসে বললে, “ভালবাসো”
আমি অবাক; নির্বাক হয়ে তোমার পানে তাকিয়ে,
তুমি চলে গেলে কিছু না বলে।
জৈষ্ঠ্যে আবার ও এসেছিলে,
বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে, তখন
বাবা না কোরে দিয়েছিল।
তুমি মলিনমুখে ফিরলে,আমি সেদিন ও বলিনি।
আমি আজও নিশ্চুপ থাকি।
যখন কবরপানে তাকিয়ে থাকো,
আমাকে না পাওয়া তোমাকে কষ্ট দেয় নি,
হতাশ করেছিলো বুঝিনি,
তবে তোমার অশ্রুসজল নয়ন দেখেছি।
দুপুরে যখন কাঁদো কবরের পাশে,
মায়া হয়,ভাবি যদি মেঘ হতে পারতাম,
তোমাকে বিষ্টি দিয়ে ভিজিয়ে দিতাম।
যাতে চোখের জল সবার অগোচরে থাকে।