সত্যবাদী রাখাল

আমি রাখাল ছেলে
থাকি মিশে
মেষ ভেড়া প্রকৃতির মাঝে।

আমি অর্জন করেনি,
তোমাদের মত এত শিক্ষা,
পায়নি কোন গুরুজনের দীক্ষা।

তোমাদের মত হইনি শিক্ষিত চোর,
অসহায় গরীব দেখলে বন্ধ করিনা দোর।

তবুও আজ আমি ক্লান্ত,
নিজের ভুল গুলো ধরে,
তাইতো আজও হয়নি শান্ত,
এই রণ প্রান্তে।

কে বলেছে আমি মিথ্যাবাদী,
নিজের পরিচয়ে আমি সত্যবাদী।

কখনো করিনি অন্যায় কারীর
সাথে আপোষ,
করিনি কখনো গোপন
সত্যবাদীদের দোষ।
……………………………………………

ভালোবাসার প্রান্ত

কল্পনায় নিজের অজান্তে,
বলেছি কথা প্রতিদিন,
নিজেরি মনের সাথে।

হয়েছিল মুগ্ধ মানুষের সরলতায়,
সকাল বিকাল আর সন্ধ্যায়।

অভিনয় আর বাস্তবতার মাঝে,
সত্যের সন্ধানে।
বিরামহীন চলছি ছুটে,
ভালোবাসার প্রান্তে।
……………………………………………

তেত্রিশ বর্গ মাইল

সবুজ শ্যামল ঘেরা লোনাভূমি,
তেত্রিশ বর্গ-মাইলের কাঁদামাটি।
পাবে নাকো কোথাও অশ্রুতে ঘাঁটি,
পাবে সেথায় হাজারো গল্পের ঝুঁড়ি।

মিশে আছে গভীর সম্পর্কে,
প্রতিবেশীর মতো নদীর সাথে।
করে খেলা জোয়ারের জলে,
হাজারো জীবন নিয়ে চলে।

সকাল সন্ধান তুলছে মাতিয়ে,
মাঠে ঘাটে চায়ের দোকানে।
খেলা ধুলা গল্পের আসরে,
করেছে দখল মানুষের হৃদয়ে।

ঘুরছে মানুষ কাঁদা মেখে,
ঘাটের মাঝি নৌকা রেখে,
ফিরছে সন্ধ্যায় হাসি মুখে,
হ্যারিকেন জ্বালিয়ে গল্পের দেশে।

সকাল হলে শ্রমিক বেশে,
নামছে সবাই লোনা জলে।
দিনে এনে রাতে ফুরাচ্ছে,
খুঁজছে সবাই সুখের রাজ্যে।
……………………………………………

শৈশবের পাতায়

ভাবতাম মনে মনে,
শৈশবের ছাত্র জীবনে,
যদি না হতো পরীক্ষা,
লেখা পড়ার ঘরে।

তবে খেলা ধুলা আর দুষ্টু মিতে,
দিতাম গ্রামের পাতায় ভরিয়ে,
বন্ধুদের আড্ডায় মাঠে ঘাটে,
বিলে আর নদীর চরে।

শাপলা ফুলের মালা নিয়ে,
প্রেমিক রুপে সারা দিন,
থাকতাম বসে পুকুর ঘাটে,
বন্ধু রুপে উপহার শেষে।

কখনো হয়নি আর বাস্তবে,
স্বপ্ন গুলো বেড়াতো ভেসে,
ধুলার কনায় আর নীল আকাশে।

বাবা বলতেন-
লেখা পড়া করিশ খোকা মন দিয়ে,
অনেক বড় হতে হবে যে তোকে।

স্কুল জীবন হলো শেষ,
কলেজ জীবনের মধ্য ভাগে,
শুরু হলো বিশ্ব জুড়ে,
মহামারী করোনা।
তখনি সরকার দিলো ঘোষণা,
স্কুল কলেজ সবি বন্ধ রবে,
অনলাইন ভিত্তিক পড়াশোনা হবে।

আনন্দে – উৎফুল্লে
শিশু কিশোর দের
গেলো মন ভরে।

বই খাতা তাকের পরে রেখে,
ধরল বায়না রঙিন সাজে।
স্কুল না খুললে আর,
বই খাতা ছুবে না।

গেলাম মিশে কিশোরদের সাথে,
রাখি মাতিয়ে নদীর চরে,
মিষ্টি সুরের গল্পের আসরে।

মুক্ত ডানা মেলে,
শৈশবের রঙিন সাজে।
আসিলাম আবার ফিরে,
বিলে আর নদীর তীরে।
……………………………………………

হলুদ বসন্ত

হলুদ বসন্তের শেষ বিকালে,
হলুদ খামে তোমার নিমন্ত্রণে,
অনুভবে পড়েছিল মনে তোমাকে।

গোঁধূলি লগ্নে গাছের নীচে,
ভালোবাসার উপহার নিয়ে,
স্বপ্ন দেখেছিলাম তোমাকে,
চোখের প্রতি পলকে।

বেঁলিফুল দিবো খোঁপায় বলে,
গোলাপ আর শতশত মালা নিয়ে।
……………………………………………

আপন নীড়…

সকাল ফুরালো,
বিকাল হলো,
রঙিন সাঁজে,
চলে এলো মাঠে।
কালো মেঘ
আকাশে দেখে,
ধরলো বায়না
ছোট্ট সোনারা।
নাচবো সবাই
গানে গানে,
আসো চলে
বৃষ্টি মামা।
প্রকৃতির রুপে,
ধুলা মেখে,
হাসি হেসে,
চলছ নেচে সবাই।
সৃষ্টি সুখের
উল্লাস শেষে,
ক্লান্ত মাখা
মুখটি নিয়ে
আসলো ফিরে
সবাই আপন নীড়ে।
……………………………………………

মায়ের জন্য ফুল

প্রতিদিন সকালে ডাকে মায়ের,
উঠ খোকা আর ঘুমাষ না।
ফজরের নামাজ পড়ার জন্যে জাগো তাড়াতাড়ি,
কুরআন হাদীস পড়ে,
সম্পন্ন করো ক্লাসের পড়া।
অনেক বড় হতে হবে যে তোকে…
স্বপ্ন দেখি তো আমি দিবারাতি।
মায়ের কথা মত করছি কাজ,
তাহার স্বপ্ন পুরুষের নেশায়।
অবিরাম করছি পরিশ্রম,
সকাল দুপুর রাত্রে ছুটি।
মায়ের মুগদ্ধ হাসির জন্য
একটি তাজা ফুলের জন্য ।
……………………………………………

আব্বু আমার

আব্বু আমার-
চুমু দিয়া মুখে,
ঘুম ভাঙায় সকালে,
শীতল হাতের স্পর্শে।
আব্বু আমার-
সকল ক্ষুধা নিবারণ করে,
হাসি মুখে খাওয়ায় আমাকে।
আব্বু আমার-
শয়নের স্বপনে জাগরনণে,
জীবন গড়াড় ভূবনে,
ভালোবেসে যায় নিস্বার্থে।
……………………………………………

ভালোবাসার অপেক্ষা

আজও দেখেনি কোন মুখ,
তোমার অপরূপ মুখটি দেখবো বলে।
আজও খুঁজিনি কারোর মন,
তোমার মনটি পাবার অপেক্ষায়।
আজও ধরিনি কারোর হাত,
তোমার হাতটি ধরবো বলে।
আজও হাটিনি কারোর সাথে,
তোমার সাথে হাটবো বলে।
আজও শুনিনি কোন গান,
তোমার মিষ্টি কন্ঠের অপেক্ষায়।
আজও লেখিনি গল্পের শেষ পাতা,
তোমার গল্পটি লেখবো বলে।
আজও ভালোবাসিনি কাউকে,
তোমার ভালোবাসা পাবার অপেক্ষায়।
……………………………………………

জনতার মিছিলে

দেখিনি আমি বায়ান্নর,
ভাষা শহীদ যোদ্ধাদের।
দেখিনি আমি একাত্তরের,
রক্তো মাকানো ভাইদের।
দেখেছি বিশ শতকে,
লাল সবুজের পতাকায়,
নেয্য দাবি ফিরিয়ে,
নির্যাতিত জনতার মিছিলে,
ছাত্র বন্ধু ভাইদের কে,
অধিকার আদায়ের লড়তে।
……………………………………………

মাতৃভূমির প্রেম

গাবুরা থেকে ঘুরে এসে,
যে দিনগুলি নিয়ে আসলাম,
সেই দিনগুলি গুছিয়ে রাখলাম,
বিছানায় বালিশের এক পাশে।
মাঝে মাঝে দিনগুলির পরশ…
স্বপ্নে জাগিয়ে তোলে,
স্মৃতিময় মাতৃভূমির প্রেমে।
মাঝে মাঝে স্বপ্নে বিভোর হই,
সবুজ সোনালী স্মৃতিময় সেই
মাতৃভূমির মায়ায়।
……………………………………………

শুভ্রতার প্রতিক

বর্ষা শেষে বাতাসে নেচে,
শরৎ ঋতুর অপরূপ সাজে,
দিগন্তজুরে রংধনুর হাসি নিয়ে,
কাশফুলের সৌন্দর্যের রূপ ছড়িয়ে,
স্নিগ্ধ জ্যোৎস্নার আলোর ছায়ায়,
নির্জন নির্মল আকাশে বাতাসে সেই…
শুভ্রতার প্রতিক আসলো, সোনালি গোধূলি লগ্নে।
……………………………………………

স্বপ্ন

তোমায় নিয়ে স্বপ্ন দেখি,
ভোরের কুয়াশায় হেমন্ত ফুলের মাঝে,
গাইছি গান দুজনে কোকিলের সুরে সুরে ।
তোমায় নিয়ে স্বপ্ন দেখি,
গোধূলি লগ্নে দুরু দুরু বাতাসে,
পার করছি গল্পের ঝুলিটাকে।
তোমায় নিয়ে স্বপ্ন দেখি,
উড়ছি দুজনে চীলের ডানাতে,
রংধনুর রঙে ভালোবাসার ছবি আঁকবো বলে।