নারী

এক.

নারী,
তোমার বৃষ্টিভেজা শরীর
পরাজিত করে সকল সুন্দরকে।
আমি মানুষ বলেই হয়তো
সুুন্দরের পূজারী। তবে-
পুরুষ হতে চাইনি কখনোই।

দুই.

নারী,
তোমার শারীর আঁচলে ভেসে আসে
দ্রৌপদীর শরীরী গন্ধ।
আমিও না হয় দুর্যোধন হবো
তবে তুমিও কি আমায়
অপরাধী বলবে?

তিন.

নারী,
তুমি বনলতা কিংবা লাবণ্য নও
নও তুমি হেলেন অথবা বেলিন্ডা।
তুমি নারী, তুমি প্রকৃতি
তুমি সুন্দর, তুমি দেবী-
তাইতো তুমি নমস্য।

চার.

নারী,
তোমার ভেজা চুলের গন্ধ
ফুলের গন্ধকেও হার মানায়।
গন্ধপিপাসু আমি-
তোমার কাছে চাই না অন্য কিছু।

পাঁচ.

নারী,
আমার ভাবনার জগতে
তুমি মানুষ নও কোন-
নও কোন অপ্সরা পরী।
তাইতো তোমায় আমি
দেবী রুপেই স¥রি।

ছয়.

নারী,
যদি আমার ভালোবাসা
কেড়ে নেয় কেউ-
আমিও খুনি হবো
সব প্রেমিক হত্যা করে।

সাত.

নারী,
অযথা ভেবে লাভ কী বলো?
যুদ্ধে তো আমরাই জয়ী হবো
হয় তুমি, না হয় আমি।

আট.

নারী,
তুমি সামনে এলেই আমি
ধ্যানমগ্ন হয়ে যাই।
তোমাকে দেখলেই আমি
তপস্যার জপমালা গুনি।
কী করে বোঝাই তোমায়-
আমি তো আর সন্যাসী নই।

নয়.

নারী,
তুমি যখন চৈত্রখরা
তুমি যখন চাতক
বৃষ্টি হয়ে আসবো আমি
না হয় বলো ঘাতক।

দশ.

নারী,
তুমি তো আর ঈশ্বর নও
ঈশ্বরের প্রতিনিধি মাত্র।
তাইতো তুমি ক্ষত-বিক্ষত।