কোন পদ্মকলির কাব্য

যখন সাজানো দাবার গুটিগুলোর মতো
প্রবল কোন্ বেষ্টনীতে গৃহবদ্ধ হই ,
আমি বুঝিনা অতঃপর আমি রই
আমার নিভৃতে পার্থিব বাস্তুঘিরে ?
তবু আমি ইতিবৃত্তকার ইতিমধ্যে কেন
আমার জল ছুঁয়ে থাকা পৃথিবীর
কখনো কখনো স্থিত পদ্মকলির নিবৃত্তির ,
কখনো কখনো বাস্তুঘেরা ভালবাসার ?
…………………………………………..

প্রণয়

পাতায় পাতায় বৃষ্টির রমণ
বুকের কোন্ প্রহরে অঝোর
মাদলের নেশা ?
তবে তবু কি
নিপুণ প্রণয় শুধু শুধুই ক্ষরণ
কখনো কোন অবসাদে ?
…………………………………………..

তৃষিতা

নদীর আবর্ত অথই জলে…
জলের ভেতর রমণীরা কখনো কখনোতো
জলের ঢেউ কিংবা অগস্ত্য যাত্রায়
অরণ্যের মাতাল সখ্য ।
জলের শুদ্ধ করতলে অন্তর্গত তৃষ্ণায়
রমণীরা আমার গভীর স্বপ্ন…
হে আমার তৃষিতা জলের রমণীরা ।
…………………………………………..

নিভৃত অপেক্ষা

দিনভর নগ্ন অপেক্ষার নিভৃতে তখন
কোন্ চন্দ্রকলায় মায়াবী বাজিকর
স্বর্গের মতো আধিপত্য বিস্তার করে ফেরে
আমার অমরাবতীর অট্টালিকায় ?
আমি জানি না নিরন্তর…
নিভৃত অপেক্ষায় অথচ কী করে
নরকের কালো রাত আসে ?
…………………………………………..

কখনো অভিলাষ

অভিলাষ কোন্ আসক্তি
নায়ক নায়িকার গোপন সময়…
অথচ জলন্ত অঙ্গারে তার
অলৌকিক কিংবা আদ্যরসের আবৃত্তি ?

তবু প্রণয়ী অঙ্গে বৃষ্টি বিলাস কেমন
এক আশ্বাসন সংশয়হীন ।

তাই আহুত প্রকৃতি দায়বদ্ধ থাকে
অতঃপর কোন্ জলসীমায় সেই
এক ডুবসাঁতারের মতো
যখন আমরা সবাই নায়ক নায়িকা ?
…………………………………………..

মন-ব্যাপারীর বেচাকেনা

বেশি দূর নয় তবু
মন-ব্যাপারীর বেচাকেনা শেষ হয় না…
এ কেমন হাটবাজার দখলে তার,
দখল তার ?
কখন ফিরবে সে কখনো জানে না,
আবার
কীইবা হবে তার সব বেচাকেনার ?
…………………………………………..

যত অলস বাতাস

যখন অলস বাতাসে বাতাসে আমার
মগ্ন প্রহর বিভক্ত নির্জনতায়…
মগ্ন নিঃশ্বাসের স্পন্দিত স্পর্শ তখন
চাঁদের আলোয় ডুব সাঁতারের মতো ।

অকপট নয়ন পত্র-পল্লবে দোল খায় ,
অকারণ কথা বলে কথা শোনে তবু
কখনো কখনো আঁকা বাঁকা চাহনি
কোন্ সে চোখের জল আর আবর্ত ?
…………………………………………..

ব্যাকুল বৃষ্টি

অন্তরীক্ষের ব্যাকুল বৃষ্টিরা কখন
অপলকের উতলা ঝরনা ,
সঞ্চিত ছায়াবৃত্তে অন্তজলের অপ্সরী ?
জানিনা ।
আমি জানিনা যদিও তবু
উপান্তের স্বীয় আবাসে তখন
কেবল হয়তো নামান্তরে মণ্ত্রপাঠ
কিংবা অন্তস্থ অন্তর…
তবে আমার না তোমার সে কোন্ বৃষ্টি ?
…………………………………………..

নদী আর মানুষেরা

অরণ্যানী পেরিয়ে নদী চলে
মেঘ-পাখি চন্দ্র-সূর্যের সাথে…
নদী কখনো এসে পৌঁছায় শহরে,
শহরের আধুনিকতায় বুকে জমে নানা কিছু।

কোথা থেকে জন্ম হয়েছিল ভুলে যায় সে,
একসময় সংকীর্ণ হয়ে পড়ে নদী…
শহরের ইট-পাথরের সাথে সংঘাত তার
হাজার জলকণার মিলিত বাসরে ।

সমুদ্র-শর্য্যার আশায় বিষণ্ণ কখনো
নদী জানে না কেন এমন হয় সে
মানুষের আধুনিক ইচ্ছামতে,
নদী ভাবেনি কখনো ধূয়ে মুছে সে
কলুষিত হয় মানুষের জন্য ?
…………………………………………..

নষ্টামী

সব নষ্ট সময়ের বিস্তৃতি পেরিয়ে
তবে কে আসবে আমার কাছে
উজাড় করে বারেবারে
তারও নষ্ট সময় ধরে ?
এটা যদি কেবলই নষ্টামী তবু পাছে
কী মধুর পাগলামী যায় ছড়িয়ে ?