মানুষ

তুমি কে ?
আমি একজন মানুষ
আরে না তুমি তো মেয়ে মানুষ
মানুষ আর মেয়ে মানুষ কি আলাদা ?
হ্যা তা তো বটেই, মানুষ হল সে যার প্রতিটি ইচ্ছার মূল্য আছে,যার সম্মানও আছে, যার কথার মূল্যয়ন হয়…
-আর মেয়ে মানুষ!
-আরে সে আবার মানুষ নাকি, তার আবার সম্মান,কথার মূল্য আরে তাকে তো একা চলার অধিকার দেওয়া হয় সে আবার মানুষ,
মানুষ তো সেই যার পথ চলতে ভয় নেই, যাকে কেউ উপভোগ করে নৃশংস হত্যা করে না, মানুষ সে যে স্বাধীন, সকল আনন্দে যে সামিল হয় এ সব কি আর মেয়েদের হয়
মেয়েরা আবার মানুষ নাকি ওরা হল মেয়ে মানুষ।

না আমি ও মানুষ!!
সমাজ আমার মানুষ হওয়ার বাধা,আমি ও মানুষ,আমি মানুষ হয়ে বাচতে চাই!
…………………………………………..

অনুরোধ

শুনছ
তোমাকেই বলছি
একটা কথা ছিল
জানিনা রাখবে কিনা
আমার পরিপূর্ণ বিশ্বাস তুমি রাখবে
আজ অনেক দিন হয়ে গেছে
তোমার আমার পরিচয়ের
মনে পরে সেই দিনগুলো
আমারা কত পথ হেঁটেছি জানি সে সব ভাবার অবকাশ তোমার নেই…
তবুও বলতে চাই হারানো সেই কথা
তুমি শুনছ !
শুনছ কি ?
নাকি নিমগ্ন হয়ে আছ কোন গানে
তোমায় ভেবে যখন আমার কপল বেয়ে জল পরে
তুমি তখন বন্ধুদের নিয়ে আড্ডায় মাতো
আমি যখন ফোন এর উপর ফোন করি
তুমি তখনই নতুন কোন মানুষে তোমায় মাতো
আমি যখন ক্লান্ত তুমি তখন আমার সম্মান বাজি ধর।
এই তুমি দের জন্য আমারা হারাই প্রান
পরিবার হারায় মেয়ে,বোন হাজারো সম্পর্ক !
তুমি শুনছ !
এই তুমিরা এবার থামো।
এবার থামো।।
…………………………………………..

নিজেকে খোজা

নিজেকে ছোট করার প্রত্যয় কোনদিনও
ছিলো না অবচেতন মনে। রাত বাড়লেই
মানুষ তার মনুষত্ব খোজার চেষ্টা করে!
পাওয়া না পাওয়ার অংকটা থাকে সব সময়
অন্ধকারের ভাজে।
তুমি অথবা তোমরা যারা নিজের
অস্তিত্বের বিশ্বাসে নিয়ন আলোর
অন্ধকারে প্রতিরাতেই সাতার
কাটো কোন এক অজানা অস্তিত্বের
নেশায়! তারও ফেরে না! জীবন্ত দগ্ধের মত
জ্বলতে থাকে তোমাদের প্রানের তৃষ্ণা!
আমিও মাঝে মাঝে তোমাদের
দলে ভিড়ি! নিজকে খুঁজতে আমিও
তোমাদের মত বিলিন হওয়ার তিব্র নেশায়
চিতার মাঝে বসবাস করি! প্রিয়
হারা রাতের ট্রেন প্রতিদিনই ছুটে যায়
আমাকে নিয়ে কোন এক অজানা গন্তব্যে!
…………………………………………..

অব্যক্ত ভালোবাসা

যে সম্পর্কের শুরু টাই হয়নি
তার শেষ টা কারও জানা নেই
কিন্তু তার রেস টা রয়ে যায় পুরো টা সময় জুড়ে
যেখানে হয়তো কথার মানেই নেই
ভালোবাসার মানে খোঁজা সেখানে নিছক পাগলামী
যদিও পাগলামীর সংঙ্গা সেখানে অস্পষ্ট
ভালোবাসা হয়তো থাকে না পাওয়ার মাঝে
অব্যক্ত রয়ে যায় অনুভূতি।
…………………………………………..

বসন্ত

আমার বসন্ত মানে বারান্দার ওই আলো টুকু
আমার ভালোবাসা জানালায় আসা এক চিল বাতাস আর গান
আমার বেচে থাকা জবার ডালে ফোটা ওই কলি
আমার মুক্ত আকাশ পশ্চিম কোন পূর্বের বিপরীতে
বেলাশেষে ঘরে আসা ল্যম্পপোষ্ট এর আলো
আমি বসন্ত দেখিনা কত কাল…
…………………………………………..

স্বপ্ন চূর্ন

দিগন্ত যখানে মিলে যায়
আকাশ এসে থেমে যায়
সেখানে স্বপ্ন গুলো হারিয়ে যায়
শুধু রয়ে যায় অনুভূতি
চাইলেই পাওয়া যায়
হাত বারালে ছোয়া যায়
স্পর্শ শুধু অনুভূতি।
…………………………………………..

ব্যবধান

রাত জাগা চাদ যতটা নিঃসঙ্গ
নির্জন রাত কে আলোকিত করে জেগে রয়
আমি হয়তো ততটা
তোমার প্রেমাতাল সুর শুনে হই।
সমুদের ঢেউ যেমন বার বার তীর ছুয়ে
হারিয়ে যায় দূরে
তুমি ও ঠিক তেমন
“দূরে তুমি দাঁড়িয়ে সাগরের জলে পা ভিজিয়”
গান গেয়ে মন ছুয়ে রয়ে যাও দূরে
চাদ যেমন সাগরের বুকে মিশিয়েও হাজার মাইল দূরে
তুমি আমি ও তাই
তবুও তুমিময় লাগে কাল্পনিক প্রেমে।।
…………………………………………..

শেষের কবিতার পরের কবিতা

দূর থেকে বহুদুরে ওই পাহাড়ের অজানায় চলে যাচ্ছি,
যে পাহাড় পেরোতে হয়তো তোমার সারাটা জীবন লেগে যাবে,
হয়তো এভাবে আর পাড়ি দিবা না,
হয়তো দিগন্তের কোন কালে মিললেও মিলতে পারি,
কিন্তু দুজন দু-প্রান্তে।
শুধু জানবো একি আকাশ এর নিচে একি পাহাড়ের কোল ঘেঁষে,
শুধু দুজন দু-প্রান্তে।
হয়তো এই শেষ দেখা, হয়তো শেষ চোখাচোখি
হয়তো শেষ হাতে হাত রাখা,
হয়তো ভালোবাসা থেকে যাবে কিন্তু বদলে যাবে রঙ।
হয়তো এই অনুভূতি গুলো থেকে যাবে, বদলে যাবে সত্তা।
তবু রয়ে যাবো আমি, হয়তো ভুলে যাব আমায়,
কিন্তু ভুলবো না তোমায়, তোমার স্মৃতি।
হয়তো ভলোবাসবো কিন্তু খুঁজবো না চোখ ফিরে,
হয়তো এটাই শেষ চিঠি, হয়তো এটাই শেষ বিদায়।
হয়তো অনন্তকালের পথে মিললেও মিলবো,
কোনো ভালোবাসার আড়ালে, দুটি মানুষের মাঝে।
…………………………………………..

দেশ

এই দেশেতে এসেছিল
হায়নার এক দল
কেরে নিতে চেয়ে ছিল
মোদের মুখের বোল
দেয়নি মোরা কেরে নিতে মোদের ভাষা
রক্ত দিয়ে জয় করেছি প্রানের বাংলা ভাষা।
রক্ত দিয়ে নাম লিখেছি প্রানের বাংলাদেশ।
এই দেশের ই হায়নারা আবার নিল প্রান
রক্তের বন্যায় ভাসিয়ে দিল স্বাধীনতার নাম
অসহায় দেশ হারালো তার পিতা
আধার পথে হারিয়ে গেল পতাকার যত আলো।
…………………………………………..

ভাষা

একুশ মানে এই বিংশ শতাব্দীতে…
দল বেধে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া,সারাদিন ঘোরাঘুরি খাওয়া দাওয়া,পোশাক টি কিন্তু সাদাকালো…
রফিক শফিক কে প্রশ্নের উওরে- স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা প্রাণ দিয়েছে !
বাংলা বলতে লজ্জা পাওয়া
সেই কথাটা ইংলিশ এ বলা !
বাংলা ভাষা যেন দিন দিন শহীদ মিনারের বেদি তেই বাধা পরছে
রক্তের দাগ মিলিয়ে যাচ্ছে পাশ্চাত্যর আভিজাতে্য
আমারা হারাচ্ছি ভাষার সম্মান।