স্বাধীনতার স্বপ্ন

জ্ঞানী যুক্তিবাদী ভাবুক সংগ্রামী
বিপ্লবী ছিল যারা
সততা শান্তি ন্যায় স্বাধীন
সংবিধান চেয়েছিল তারা।
গরিব ধনী জাতি অজাতি
নাহি রহিবে ব্যবধান
এক সাথে মিলে রচিবে
দেশের শ্রেষ্ঠ বীর সন্তান।
নাহি রবে ভেদাভেদ সংঘাত
দ্বন্দ্ব হানাহানি হুংকার
শান্তি স্বচ্ছ নীড় রহিবে
পাইবে সবে সাম্যে অধিকার।
একে অপরের সুখে-দুখে
মিলন মেলায় যত কষ্ট
পরস্পরে জরাইয়া রহিবে
কেহ হবে নাকো নষ্ট।
ফাঁসির মঞ্চে যাহারা রক্ত
দিয়া আনিল স্বাধীনতা
বর্বর ফ্যাসিস্ট দেশীয় ইংরেজ
রাখিয়াছে মানবতা।
রাজত্ব কায়েমের লক্ষ্যে যারা
সদা মনুষ্য করে ঢাল
তারা কি নয় দেশ জাতি
স্বাধীনতাকামীদের কাল।
নীতি-বিবেকহীন নরখাদক
চালকদের আছে সততা
বহমান চলার পথ জীবন কি
নয় স্বাদহীন স্বাধীনতা।
…………………………………………..

ধাঁধা

জানিনা কোথা অজানা অদৃশ্য গন্তব্য ছায়াপথ
চলেছি বেয়ে
উৎকন্ঠা উদ্বেগ হতাশার গাঢ় অন্ধকারে জীবন
আছে চেয়ে।
সত্য ন্যায় প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর রুদ্ধ অস্তিত্বহীন
অসত্যর ছাপ
রক্ষী নিরাপত্তা বিচার বিচারক অসহায় চলে
অশুভ দাপ।
হ্যা না ঠিক বেঠিক রং বেরঙের মেকী রসের
কত বহর
দিন দিন মূহুর্ত সদা প্রতিক্ষণে মানুষ গুনছে
মৃত্যুর প্রহর।
অবৈধ ফ্যাসিস্ট নরখাদক ভদ্রবেশীর কারবার
চলে ধারা
আবছা অনিশ্চয়তা ধোঁয়াটে ধাঁধার জাঁতাকলে
যাবে মারা।
উস্কানি উত্তেজনা সভ্যতা বিনাশী হুমকিররাজ
হুংকার জারি
হত্যাযজ্ঞের ধ্বংসলীলায় বলি হয় সদ্যোজাত
নর নারি ।
মনুষ্য সৃষ্ট শানিত অস্ত্র রাজত্বের প্রকাশ্যে চক্র
নব্য স্লোগান
মৃত্যুপুরীর হিংস্র রক্তনদের গ্রহতলে ভেসে ওঠে
অজস্র প্রাণ।
…………………………………………..

বিদ্রোহী কন্ঠ-৩

গ্রহে আবর্জনা দূষিত যত আছে নালা
অস্তিত্বহীন ধ্বংস হোক সব অশুভ বালা।
স্বচ্ছ মুক্ত প্রেম শান্তিময় হোক পৃথিবীর ছন্দ
বয়ে চলে যাক নালায় আছে যত ধরার গন্ধ।
দুঃখ যন্ত্রণা আর্তনাদ ক্লেদ ব্যথা বিশ্বের বহি
মানবতার মেকি রূপে নাহি হৃদয়ে মাঝে রহি।
দমন-পীড়ন অত্যাচার সন্ত্রাসী কর রাহাজানি
হোক মরণ তবু ও শীর নাহি নোয়াতে জানি।
দমন রুখিবার তরে সৃষ্টি কর নব ভয় ত্রাস
আমি দুর্বার যোদ্ধা চক্রান্তকারি আমি গ্রাস
ওরে স্বৈরাচারী প্রাণঘাতী সৃষ্টি কর মৃত্যুর ধাপ
ততই হয় পাওয়ারফুল বাড়ে তীব্রতার উত্তাপ।
জানি অশুভ বেহায়া শক্তি সর্বত্র আছে ঘিরে
চলি উল্কার বেগে আসি বা না আসি ফিরে।
দালাল বেহায়া অসভ্য অস্তিত্বহীন জানোয়ার
তুমি রুধিবে চেষ্টা করিয়াছ করিতেছ
…………………………………………..

দেশকো ভলাবাসে
আঞ্চলিক খোট্টা ভাষায় রচিত কবিতা

   দেশকো ভলাবাসে 
                   শুনলে সব 
                   দেশ কা জনগণ
        আইথোই জিন্দেগি
                         হৃদয় আত্মা 
                      জান আইথোই মরন। 

        আইথ মে  জন্মিহে 
                    হোয়ইয়ে বড়া 
                         খায়াহ ওরে নুন  

যো দেশকা সাথে
করেগা গদ্দারী
করদেগা খুন।

      আয়সী হই কিসকা
                      হিম্মত হয় 
                   কোন শক্তি দেশ 

দুনিয়া কো মিঠা
পল্টা দেঙ্গে ওরে
কর দেঙ্গে শেষ।
কোনো কুচছু মে
কোই শক্তিমান দেশ
সে হয়নি কম
হই আয়সী কোই
রাস্ট্র দেশ শক্তি
দেখাত দেখি দম।
…………………………………………..

বার্তা

এশিয়া আফ্রিকা শুনরে বিশ্ব গ্রহ
ভারতের জনগন
এই বঙ্গে নজরুল, নেতাজী, রবীন্দ্রনাথ
সিরাজদৌল্লার জাগরণ।
মীরমদন, মুর্শিদকুলি, জগদীশ
আলাওল কবি
মুর্শিদাবাদ বঙ্গ ছিল বিশ্ব উন্নততর
লন্ডনের ছবি।
ফাঁসির মঞ্চে ছিল তিতুমির মেহেরূন্নেসা
মাতঙ্গিনী, ক্ষদিরাম
শত বাঙ্গালীর খুনে রঞ্জিত কন্ঠে ধ্বনিত ছিল
বিদ্রোহী সংগ্রাম।
অতীতে দলে দলে আজও সবে স্মৃতির পাতায়
দেয় হাতছানি
জানোকি মুর্শিদাবাদ বঙ্গ ছিল বাংলা বিহার
উড়িষ্যার রাজধানী।
নানা অছিলায় ছলনায় মুর্শিদাবাদ বঙ্গ যাহারা
করিয়াছো দূর্বল
তাহাদের জানায় বাংলা বিপ্লবী বীর ছিল
স্বাধীনতা সম্বল।
…………………………………………..

মানবতা

দিকে হতে দিকে দাবানলের ঢেউ জ্বলছে বাস
ট্রেন বাহন নারী
দাউ দাউ করে উড়ছে মৃত্যু লেলিহান শিখা
ঝড়ছে রক্ত বরি।
জ্ঞানহীন অন্ধ নরখাদক রক্ত পিপাসিত দল l
Ee2ewssss222 সুযোগে করে যোগ
অসভ্য ভক্ত দস্যু বর্গী দানবশক্তি দাপিয়ে চলে
নারীদের করে ভোগ।
অর্থ পাওয়ার গদি ধর্ম অহংক শক্তির মোহে
ভুলে যাই মানবতা
সুন্দর লাবণ্য শান্তিবারির চলমান ধরাতলে
নিয়ে আসে অস্থিরতা।
বর্বর নির্লজ্জ বিবেকহীন মিথ্যার আস্ফালন
দিকে দিকে হুংকার
দুই মুখ ভন্ড-মেকি নয়কে ছয় ছয়কে নয় বলে
বিশ্ব করে ছারখার।
…………………………………………..

বিচারেরবাণী

ন্যায় সত্য বিচারের আশায় গেল
দূর দিগন্তে ছুটে
আশা রহিল পেল না কিছু অন্যায়কারী
নিল সব লুটে।
দুর্বল অসহায় হত্যভাগ্য আর্তনাদ গেল
ন্যায় বিচার লয়ে
দেখিল গিয়া বিকায়িত কাণ্ডারির দল বিচারক কাঁপে ভয়ে।
যাহারা ভাঙ্গিল করিল বিরোধী লইল অসখ্য প্রান
তারাই শ্রেষ্ট পূজারী আদরিনি জয়
বীরত্ব পেল সম্মান।
…………………………………………..

জেলখানা

     ঈমানদার ভালো সরল
             সত্যবাদী তোর 
                      কি নেই জানা
    তোদের জন্য পৃথিবীরতল 
                       বিষাক্ত অতি
                    ভয়ঙ্কর জেলখানা। 

        অসত্য মিথ্যার মেকির
                আস্ফালনে ছেয়ে 
                            আছে সবে
          পার যদি ভুলে যাও 
                        জানা  নেই সত্য
                           আসবে ফিরে কবে। 

সত্য আজ ভারাক্রান্ত
ভুলণ্ঠিত অচল
অস্থির ভার
নীরব নীরবে অভিমানের
বেদনায় অশ্রু
ঝরে শতবার।

    অসত্য মিথ্যাবাদী ভণ্ড
               নির্লজ্জ যাদের 
                 নেই কোন লাজ
       তারাই  দাপিয়ে চলে 
                      দেশ-দেশান্তরে  
                          তারাই করে রাজ। 

…………………………………………..

খবরদারি…

মিথ্যুক দানব অসত্য বদমাশ
ভয়ংকর গুন্ডারা
চারিদিকে ঘিরে

   নাহি কোন ঈষৎ ফাঁক বীর 
             অগ্রদূত আসিতে                       
                      পারিবে ফিরে। 

    অজানা অচেনা নাহি জানা 
              অদৃশ্য শত্রুর 
                    চলে নজরদারি 

       বেইমান লুটেরা অশুভ দস্যু
                   শক্তিরা জাগ্রত
                             চালায় খবরদারি।

আমি চালিকাশক্তি বলি কি
আমার নির্দেশে,মনে
জাগে সন্দেহ

জানিনা হয়তো অজানা অদৃশ্য
পথে চালায় নাকি
অন্য কেহ।

সাদা কালো অবৈধ অর্ধসত্য
মেকি মিথ্যা প্রতিশ্রুতি
গাহে কলতান

দূর্বল সময় অসময় সুযোগ
    লয়ে ভন্ডতার করে
                       তারা ছায়াদান।

…………………………………………..

বিদ্রোহী কন্ঠ

আপোষহীন অবিচল অটল আমি বিদ্রোহী
অন্যায় ভন্ডামি অত্যাচার নাহি কিছু সহি
শোষণ পেষন জুলুম যন্ত্রনার যত কারবার
চূর্ণ-বিচূর্ণ আমি ভেঙ্গে করি সব চুরমার।
কু চক্রান্তের যত আছে সৃষ্টি বংশ
আমি রুধি করি আমি ধ্বংস।
চক্রান্ত অশান্তির যত আছে ধাঁধা
আমি চলি উত্তাল নাহি মানি বাঁধা।
একরোখা জেদি কেউ বলে ধরালো কুড়ুল
বলে বিদ্রোহী আপোষহীন কেউবা নজরুল।
আমি কি আমি নিজেকে জানিনা
চলি সত্যের খোঁজে কাউকে যে মানিনা।
ভুল বুঝিয়ে ছড়ায় অশান্তি অন্যায় শব্দ
উত্তাল বেগে আসি করি তাদের জব্দ।
নাহি ডরি হোক যত বড় অন্যায় কারি
আসুক মৃত্যুর যম তবুও কন্ঠ রাখি জারি।
সূক্ষ্ম সন্ত্রাসী কোথা শালা রাবিশের আওলাদ
অদৃশ্য বেশে করি মুক্ত হোক যত বড় জল্লাদ
শোষণ যন্ত্রণা অত্যাচারের কোথায় কারাগার
……………………… করি আমি ছারখার
মানুষে মানুষে বাধায় লড়াই যারা খায় খুন
করি জঞ্জাল সাফ তাদের বুকে ধরায় আগুন।
আস্ফালন হুমকি হুংকার বিদ্বেষ ভীতি ভয়
করি আমি ধূলিসাৎ করি আমি ক্ষয়।
আমি দাবানল অগ্নিকুণ্ড ভয়ঙ্কর নব সৃষ্টি
জ্বালায় আগুন ছড়ায় যারা অন্যায়ের দৃষ্টি।
জুলুম শোষণ বঞ্চনা দেখে আমি ক্ষুব্ধ
কেউ আসুক বা না আসুক একাই করি যুদ্ধ।
চোখ রাঙানি দাদাগিরি ধমক হুমকি
আমি অগ্নিগিরির গোলার আগুনের ফুলকি।