রাজা একদিন শিকারে বের হয়েছেন। যে পথ ধরে যাচ্ছিলেন রাজা, ওই পথ দিয়েই আসছিল মোল্লা নাসরুদ্দিন। হঠাৎ করে রাজা তার প্রহরীদের বললেন: “আমি মোল্লার মুখ দেখতে চাই না, যাত্রাটাই অশুভ হয়ে যাবে। ওকে পিটিয়ে অন্য পথে পাঠিয়ে দাও”!
প্রহরীরা যথাযথভাবে রাজার আদেশ পালন করলো।
শেষ বিকেলের দিকে রাজা শিকার থেকে ফিরলো আনন্দচিত্তে। মোল্লাকে রাজ দরবারে ডেকে আনলো। রাজা মোল্লার দিকে তাকিয়ে বললো: আমি খুবই দু:খিত মোল্লা! খুবই অনুতপ্ত। তোমাকে আমি অপয়া ভেবেছিলাম। কিন্তু তুমি আসলে তা নও। আমি আজ বেশ ভালোই শিকার করেছি।
মোল্লা নাসরুদ্দিন এবার রাজাকে বললো: হুমম! আমার মুখ দেখে আপনি তো ভালোই শিকার করলেন, কিন্তু আপনার মুখ দেখে আমি চাবুকপেটা খেয়েছি। কে যে কার জন্য অশুভ, বোঝা মুশকিল…

এবার হোজ্জার এই কৌতুক প্রসঙ্গে :

কখনো কাউকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করতে নেই। বাহ্যিক দিক দেখে কাউকে কখনো ছোট মনে করতে নেই। সবার ওপরে মানুষ সত্য। সুতরাং মানুষের মনুষ্যত্ব দেখতে হবে তার অভ্যন্তর সত্ত্বা দেখে। মানুষের শ্রেষ্ঠত্ব নির্ভর করে স্রষ্টার সঙ্গে তার সম্পর্কের মাপকাঠিতে। আর এই সম্পর্কের মাপকাঠি অপ্রকাশ্য এবং অদৃশ্য। এমনও তো হতে পারে যে আমরা না জেনে যাকে তুচ্ছ জ্ঞান করছি সে আসলে অনেক উঁচু মাপের মানুষ। অতিথি শেখ সাদির জামার গল্পটি এ প্রসঙ্গে মনে করা যেতে পারে।
তাছাড়া এই যে কোথাও যাত্রাকালে কারো মুখ দেখে ভাগ্য নির্ধারণ করা-এটা আমাদের সমাজে এখনও প্রচলিত আছে। এগুলো যে কুসংস্কার সেটা প্রামাণ্য হয়ে ওঠে এই কৌতুক থেকে। আরও বিভিন্নভাবে বিশ্লেষণ করা যেতে পারে।
সবচেয়ে বড় যে শিক্ষাটি এই কৌতুক থেকে নেয়া যেতে পারে সেটা বর্তমান পৃথিবীতে দুর্লভ। তা হলো: সত্য কথাটি পরিণতির কথা না ভেবে মানে অপরিনামদর্শী হয়ে অকুতোভয়ে প্রকাশ করা।
মনিব যদি ভুল কোনো আদেশ দেয় তা বোকার মতো অনুসরণ না করে আদেশটি যে ভুল বা অন্যায় সেটা আদেশদাতাকে বুঝিয়ে দেয়া উচিত। কেননা অবৈধ বাড়াবাড়ি করতে কাউকে সহযোগিতা করা ঠিক নয়। সহযোগিতা করতে হবে ভালো কাজে। হোজ্জার ওপর বাদশা তার অযৌক্তিক ক্ষোভের কারণে উত্তেজিত হয়ে যে কাজটি করেছেন তা মানবীয় বিচারে সীমালঙ্ঘন। ওই সীমালঙ্ঘনে সহযোগিতা করে বাদশার সঢরসঙ্গী প্রহরীরা বাদশাহকে আরও উদ্ধত হতে সাহায্য করেছে-যা একেবারেই ঠিক হয় নি। এরকম আরও বহুভাবে কৌতুকটিকে বিশ্লেষণ করা যেতে পারে।

আপনারা যারা হোজ্জার কৌতুক পড়বেন এবং মন্তব্য করতে চাইবেন, তাঁরা চেষ্টা করবেন কৌতুক থেকে কী অনুধাবন করা যায় কিংবা আপনি কী পেলেন-সেটা তুলে ধরতে। ধন্যবাদ।
[মূল ফার্সি থেকে অনুবাদ : নাসির মাহমুদ]