খাবার কোথায় পাইরে

আমরা টোকাই পথের শিশু
পথে আমার বাড়ি ঘর,
উপোস জীবন কাটছে শুধু
কেউ রাখেনি খবর তার।
নষ্ট প্রেমের ফসল আমরা
হয়তো ধনীর ধন জানি,
মান ইজ্জতটা যাবে বলে
আমার আবাস বন মানি।
আমার ইচ্ছায় আসিনিতো
আমরা এই পথে আজ,
জন্মদাতা গেছেন ফেলে
মা হারামীর নষ্ট কাজ।
সমাজে আজ নেই পরিচয়
পিতা-মাতার জন্য,
অগোছালো জীবন আমার
আমি যে খুব নগন্য।
পথের রাজা টোকাই আমি
সবাই করে ঘৃণা,
কেউ কখনও চায়না বুঝতে
আমি যে দোষী না।
কথার বেলায় সুশীল সমাজ
কাজের বেলায় নাই রে,
কষ্টে আমার দিন কেটে যায়
খাবার কোথায় পাই রে।
বলছি শোন মায়ের জাতি
আল্লাহকে ভয় করো,
জারজ সন্তান কভু যেনো
নিজের গর্ভে না ধরো।
বাবা ও মা নাইকো যাদের
তারাই বুঝি কষ্ট,
পরিচয়হীন ভুগছি আজও
জারজ হয়ে পষ্ট।
…………………………………………..

শক্ত করে ধরো

যায় চলে যায় সময় আর
আসবে নাকো ফিরে
দাও তাড়িয়ে ঝামেলা সব
আছে যাহা ঘিরে।
ব্যস্ত তুমি দুনিয়ার মোহে
আজো কেন পড়ে
নামাজ কালাম বাদ দিলে
যাওনা আল্লাহর ঘরে।
বুঝেও কেন বুঝনা হায়
সবি মায়ার খেলা
মায়ার টানে ছুটলে সদা
নামাজ বিহিন বেলা।
করছো টা কি ভাবছো কভু
কি হবে শেষ ফল
নিজের জন্য ব্যস্ত থাকলে
কমবে না কি বল।
সময় বাকি আছে কি না
আমরা কি তা যানি
অতীত ভুলের চাও হে ক্ষমা
ঝড়াও চোখের পানি।
আল্লাহর ঘরে যাওনা ঢুকে
নামাজ এখন পড়ো
পরকালের সঙ্গী নামাজ
শক্ত করে ধরো।
…………………………………………..

ধ্বংস হচ্ছে মানবতা

মানবতা আজ তুমি কোথায়
নিরব নিথর নিশ্চুপ কেন এখনও
কিছুই কী করার নাই তোমার
নিরবে আর কত করতে হবে সহ্য
দেখেও না দেখার ভান
আর কত ধরতে হবে ধৈর্য্য
মানবতাবাদীরা আজ অন্ধ
হাত গুটিয়ে থাকবে আর কত
সবই হয়ে যাচ্ছে বন্ধ
মৃত্যু জন্ত্রনায় প্রহর গুনছে মানবতা
তাকিয়ে দেখছে সবাই
বাঁচার আর্তনাদের চিৎকার শুনছে
কাছে যায়না কেউ ভয়ে
ধ্বংস হচ্ছে মানবতা
নিরবে সব সয়ে যেতে হচ্ছে আমাদের
এভাবে যদি চলতে থাকে সময়
ধ্বংসের শেষপ্রান্ত ছুঁয়ে যাবে দুনিয়া
দুনিয়ার সবকিছুই।
…………………………………………..

প্রত্যাশা

হে নিয়তি তাকাও তুমি
দেখো নয়ন খুলে
দয়া করো মায়া করো
যাইনি তোমায় ভুলে।

পাওনা কিগো বুঝতে তুমি
ডাকছি দলে দলে
পাপী বান্দা আমরা তোমার
ভাসছি চোখের জলে।

পাহাড় সমান পাপ করেছি
ক্ষমা করে দাও
পাপ মুক্ত করেই তবে
তোমার কাছে নাও।

তোমার ডাকে সাড়া দিতে
সদা তৈরি থাকি
ঈমান দিয়েই নিয়ে নিও
এমন আশাই রাখি।
…………………………………………..

থাকে দিবা-রাত্র

ভাল-মন্দে জীবন গড়া
তাতো সবাই যানি
পরনিন্দা যায় না করা
আমরা কি তা মানি।

চায়ের কাপে ঝড় তুলে হায়
করি আলোচনা
কয়েক জন খারাপ মাত্র
দোষি কি সব জনা।

সমালোচনা করো যাদের
নয়তো সবাই মন্দ
তাকিয়ে দেখ নিজের প্রতি
ছড়াচ্ছ কি গন্ধ।

কথায় কথায় বলো যারা
পুলিশ-প্রশাসন দোষী
এ মহাবিপদে পাশে তারাই
হয়েছে প্রতিবেশী

নিজের জীবন রেখে বাজি
সেবা মোদের করে
সেবা দিতে অকালে হায়
কত জীবন ঝড়ে।

এতো ত্যাগের পরেও তারা
সমালোচনার পাত্র
দূর্ষময়ে তবুও পাশে
থাকে দিবা-রাত্র।

শিয়াল কুকুরের খাদ্য তুমি
ধরবেনা কেউ লাশ
মহাবিপদে রয় যে পাশে
যায় না কেটে পাশ।

ভালবাসতে শিখো ওদের
হবে ওরাই আপন
পথে প্রান্তরে রবে পড়ে
করবে ওরাই দাপন।
…………………………………………..

পারি শুধু ফাল

সেবার নামে সেলফি তুলি
দেখবে জনগন
নির্বাচনের সময় এলে
করবে রক্ষা মন।

হাতে ধরতে পারি আমরা
ধরতে পারি পায়
বুঁজে ও সব আমজনতা
নেতা আমায় চায়।

সরলতার সুযোগ নিয়ে
করি উল্টা পাল্টা
বুঝেও বুঝেনা আমজনতা
চুরি করি মাল টা।

মাঝে মাঝে একটু আকটু
দিচ্ছি ত্রানের মাল
নাম ফুটানোর জন্য আবার
পারি শুধু ফাল।

ছ্যাছড়া নেতা এমন হয়
সব মানুষে যানে
কাজ-কর্মে গালমন্দ
হয়না কিছু মনে।

বলতে পারো ছ্যাছড়া নেতা
বলো আরো কিছু
লাভ হবেনা লেগে আর
ধরে নেতার পিছু

যুগে যুগে আসছে এমন
সাক্ষী ইতিহাস
নেতা আমি সবি খাবো
জনগন খাবে বাঁশ।
…………………………………………..

চুরি এখন ছাড়ো

আগে পরেও চলছে অনেক
আজো সবই চলে
অনাহারীর খাদ্য খেতে
ব্যস্ত দলে দলে

ভয় করেনা শক্তি অনেক
আছেন বড় ভাই
সেই সুবাধে করছে চুরি
বলার কিছু নাই

থাকতে ঘরে খাদ্য তোমার
মজুত কেন করো
লাভ হবেনা মরে দেখো
চুরি এখন ছাড়ো

যা করেছো লুকোচুরি
দেখছে জনগণ
ক্ষমা চেয়েও আর পাবে না
আম-জনতার মন

তওবা করে করো সেবা
হওরে কবর মুখি
মানবতার পাশে দাঁড়াও
হবেই তবে সুখি।
…………………………………………..

চাও যদি বাঁচতে

করোনা থেকে চাও যদি
বাঁচতে
নবীজীর আদর্শে হবে তোমাদের
আসতে।
পবিত্র থাকতে সদা-সর্বদা
থেকো পরিষ্কার
ছোঁয়াছে রোগ সব দেহ থেকে
হবে বহিষ্কার।
কুরআনের ছায়া তলে
আসতেই হবে
যেনে রেখো বালা- মসিবত
তবেই দূরে সরে যাবে।
যানি সবাই পবিত্রতা
ঈমানের অঙ্গ
পালন না করিলে নিশ্চয়ই
করোনা করিবে সঙ্গ।
যুগে- যুগে যত মহামারী
সবি আমাদের কর্ম
চলে যাবে সব চিন্তার কারণ নাই
কর পালন ইসলাম ধর্ম।
শান্তির ধর্মে এসো সবে ফিরে
পাবে শান্তি
থাকবেনা করোনার মত মহামারি
হবেনা বি-ভ্রান্তি।
…………………………………………..

শুধুই স্মৃতি মনে পড়ে

আমার রাতের ঘুম গেছে চলে,
রাত জেগে তোমার সেবা করে।
চেষ্টার কোন কমতি হয়নি,
শুধুই স্মৃতি মনে পড়ে।
যন্ত্রণার কারাগার এই পৃথিবী,
কেন একাই গেলে পর-পারে?
কিছুই আর ভাল লাগেনা,
এই যন্ত্রনাদায়ক জগৎ সংসারে।
কেউ রাখেনা পাশে আজ,
তোমার মত করে।
এতই ভাল বেসেছিলে,
ভুলি কেমন করে।
সবাই দেখি স্বার্থ-পড়,
আপন চিন্তা করে।
ভালো লাগেনা কিচ্ছু আর,
যেতে চাই মরে।
তুমি ছাড়া কাটে না সময়,
শূন্যতায় গেছে জীবন ভরে।
জানি অনেক সুখে আছো তুমি,
আছো পর-পারে।
দুঃখ-কষ্ট, জ্বালা-যন্ত্রনায়,
আছি একা যাচ্ছি না কেন মরে?
আসেনা ঘুম চোখে,
শুধু তোমায় মনে পড়ে।
সুখে-শান্তিতে রাখে যেন,
করি প্রার্থনা স্রষ্টার তরে।
ভুলনা আমায় হয়তো
হবে দেখা পরপারে