অভিশপ্ত অনু-কাব্য

১.
প্রেমের প্যারিস শহর ডুবে যাচ্ছে তুষারে
ধীরে ধীরে বরফে ঢেকে যাচ্ছে এপিটাফ।

২.
একমাত্র আমারই ক্ষমতা আছে–
তোমাকে বারবার বস করার।
তোমার নীল বিষ জলে রূপান্তরিত করার।

৩.
চলো না দুজন লুটোই
চলতে চলতে আঙুলে ঠোঁটে
কামড়ে ধরুক দুটোই
আমরা দুজন আদিম খেলায়
আমরা দুজন অন্ধ
আমরা দুজন এক কামড়ায়
এক যুগ হতে বন্ধ।

৪.
খারাপের অনুতাপ নাই
তাপে পোড়ে ভালো লোক,
যৎসামান্য ভুলেও সে
বারেবারে করে শোক।

৫.
যে জীবন ঈশ্বর প্রাপ্ত অভিশাপ
সে জীবনে_
স্বয়ং ঈশ্বর নরক গুঁজে দেন প্রেম দিয়ে
প্রেম এক অষ্টম নরকের নাম।

৬.
ঘৃণা মানেই ভালোবাসা,
বুকের মধ্যে শত্রু পোষা।

৭.
যতবার প্রেম ধরতে চাই
বেলুনের ফুটোর মত বেড়িয়ে আসে দীর্ঘশ্বাস।

৮.
অভিশাপ দিতে জানি না বলেই
এক বুক যন্ত্রণা দিয়ে গেলি….

৯.
আমার মত প্রতীক্ষায় এ যাবত কেউ থাকেনি
এমনকি প্রাচীনতম সবচেয়ে একাকি বটগাছটিও না।

১০.
মাটি যাকে চায় না সে গাছ মরে যায় অভিমানে

১১.
পাথর হৃদয় নিয়ে জলে বাস…
জলের তেষ্টায় মরি বারমাস

১২.
স্টেশন হয়ে দাঁড়িয়ে আছি
অথচ রোজ সব ট্রেন ফিরে যায় বাড়ি।

১৩.
আমার মন ভর্তি কাঙালপনা
বুকের কূয়োয় জলের ক্ষুধা
মাঘের শীতে কুকড়ে উঠে
শুকোতে দেয়া জোড়া স্বপ্ন

১৪.
তুমি বলেছিলে জৈষ্ঠের ক্যাটক্যাটা রোদে
এই যে নাকের ডগায় ঘাম,আকাশে জমা রেখো
আমি দেখেছি আকাশ শুধু অশ্রু জমা রাখে
আহ্লাদিত ঘাম নিয়ে তার কোন মাথা ব্যথাই নেই।

১৫.
তোমাকে ভেবে ভেবে
ঘৃণার অহমিকায় যে কাঞ্চনজঙ্ঘা পর্বত তৈরী হয়,
মাঝে মাঝে ইচ্ছে করে
সেখান থেকে ঝাপিয়ে পড়ে মৃত্যুবরণ করি

১৬.
যখন ভেবেই নিয়েছিস
বেঁচে থাকতে ভালোবাসবি না আর
আমিও ঘটা করে মৃত্যুর আয়োজন করছি তখন…

১৭.
ধরে নেই, সমাজমতে আমাদের একত্রে বাঁচা ও মৃত্যুবরণ পাপ
তবুও আমরা অবিনশ্বর জীবনের পথ ধরে হাঁটবো…..