রেদুমিক-১১

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
দেখে বুক ফেটে যায়
কলিজাটা কেটে যায়
মাথাটাও করে ঝিন ঝিননা।

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
অবাক বিশ্ব করে ঘিন্না।

রেদুমিক-১২

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
কারা চায় ক্ষতি শুধু
রোধ করে গতি শুধু
বদমাশ কিছু লোক কিন্না।

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
ওরা খুনি গেছে সবে চিন্না।

রেদুমিক-১৩

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
মার খায় মজলুম
আর কতো পজ লুম?
শুনে যাবো সাপুড়ের বীণ-না?

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
দেশটাকে হতে দেবো লীন না।

রেদুমিক-১৪

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
রাজপথ রক্তে
ভাসে প্রতি অক্তে
জবাবের ডালা খুলে দিননা?

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
রেখে দেবো আর কোনো ঋণ না।

রেদুমিক-১৫

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
জনগণ জাগলে
ঠিকমতো রাগলে
পালাবেই শোষকেরা ইন্না।

দৃশ্যটা সিনেমার সিন না
রণসাজে নাচো ধিন ধিন্না।

রেদুমিক-১৬

এই হাতে হাত তুমি রেখে দেখো
ঠকবে না কোনো দিন
ভাঙবে না মনোবীণ
উঠবেই হেসে রোদ চেখে দেখো।

এই হাতে হাত তুমি রেখে দেখো
আলোকের এইরঙ মেখে দেখো।

রেদুমিক-১৭

জানি না কী আছে সামনে আর
কিছু লোক হেসে বলে
আধো আধো কেশে বলে
থাম থাম আর খাম নে আর।

জানি না কী আছে সামনে আর
আছে কতো মিঠে নাম নেয়ার।

রেদুমিক-১৮

কেউ কেউ আছে খুব কাজের
কেউ আছে কিছুই না
আগে কিবা পিছুই না
মুখে হাসি থাকে সদা লাজের।

কেউ কেউ আছে খুব কাজের
নেই ডর-ভয় আর ঝাঁজের।

রেদুমিক-১৯

এলোমেলো হয়ে গেছে সব
জীবনের কোলাহল
ভার্সিটি খোলা হল
নিভে গেছে আলো-উৎসব।

এলোমেলো হয়ে গেছে সব
চোখে মুখে তাই পরাভব।

রেদুমিক-২০

মানবো না কোনো রুল বাধা আর
যতো ডর-ভয় দাও
মুসিবত ক্ষয় দাও
এই হাত-পাও রাখো বাঁধা আর।

মানবো না কোনো রুল বাধা আর
চিনে গেছি বেয়াকুব গাধা আর।