রেদুমিক-৪১
বাদ দাও এইসব ফুংফাং
এই রাত শেষ হলে
সকালটা বেশ হলে
টিকবে না আর কোনো ভুংভাং।

বাদ দাও এইসব ফুংফাং
ক্ষণিকের বণিকের টুংটাং।

রেদুমিক-৪২
সারাদিন করে যাই খাটনি
তবু ওরা বোঝে না
মূল্যটা খোঁজে না
বসে বসে খায় শুধু চাটনি।

সারাদিন করে যাই খাটনি
দুনিয়াটা বেদনার হাট নি?

রেদুমিক-৪৩
আমাদের যতো আছে জানার চেষ্টা
তার চেয়ে রোজ বেশি
করে যাই খোঁজ বেশি
অন্ধের মতো সব মানার চেষ্টা।

আমাদের যতো আছে জানার চেষ্টা
তার চেয়ে পেটপুরে খানার চেষ্টা।

রেদুমিক-৪৪
হয় না কিছুই আর তদন্ত
তবু খুব ভাব করে
বিচারের ডাব ধরে
দেখায় নিজের মুখ-সদন্ত।

হয় না কিছুই আর তদন্ত
একা একা হেসে যায় মদন তো!

রেদুমিক-৪৫
রইবো না আর কভু গুটিয়ে
জীবনের সব ঢেলে
সব পরাভব জ্বেলে
আগুনের ফুল যাবো ফুটিয়ে।

রইবো না আর কভু গুটিয়ে
পড়ে যাবে সব কিছু লুটিয়ে।

রেদুমিক-৪৬
আজগুবি সবকিছু লাগছে!
মানুষেরা দল বেঁধে
পোটলায় মল বেঁধে
অসুরের সুরে আজ জাগছে।

আজগুবি সবকিছু লাগছে!
সুসময় রাগ করে ভাগছে।

রেদুমিক-৪৭
ফুটি ফুটি করে ফুল ফুটলো না
আলো হয়ে ভালো হয়ে
আঁধারের কালো ক্ষয়ে
সুবাসের পাখি হয়ে ছুটলো না।

ফুটি ফুটি করে ফুল ফুটলো না
মৌমাছি গুনগুন জুটলো না।

রেদুমিক-৪৮
দিন যায় রাত যায় থামে না কিছুই
আমি একা বসে বসে
জানি না কি ছাই পশে
ছুটে যাই আলেয়ার পিছুই পিছুই।

দিন যায় রাত যায় থামে না কিছুই
ব্যথা বুকে নিয়ে ভাবি কি ছুঁই কি ছুঁই?

রেদুমিক-৪৯
চাস যদি পায় আরো পারা দে
তবু বলি একবার
ভালো করে দেখবার
বিবেকেরে তুই ভাই নাড়া দে।

চাস যদি পায় আরো পারা দে
সত্যের ডাকে ওরে সাড়া দে।

রেদুমিক-৫০
জীবনের মায়া আর করি না এখন
যায় যাক সব ভেসে
ধান চাল যব ভেসে
ছুটি আমি হেসে হেসে, ডরি না এখন।

জীবনের মায়া আর করি না এখন
মরণের আগে তাই মরি না এখন।