নবদম্পতির ঘরে সুস্থ ও স্বাভাবিক সন্তান জন্মগ্রহণ যেমন তাদের স্বার্থকতা দান করে তেমন একটি ভালো পত্রিকা সম্পাদক ও পাঠককে তৃপ্তি দান করে। সম্পাদক সম্পাদনা করে প্রশান্তি লাভ করে আর পাঠক পাঠ গ্রহণের পর পাঠবুহ্যের মধ্যে ঘুরতে থাকে; ভাবতে থাকে তার গ্রহণের সমীকরণ।

সদ্যজাত সম্ভাবনাময় পত্রিকাটির এটি জন্মসংখ্যা অর্থাৎ প্রথম সংখ্যা। রুকসানা রহমানের সম্পাদনা ও বঙ্গ রাখালের নির্বাহী সম্পাদনার উপর পাঠকের আস্থা আশাকরি অটুট থাকবে। শিশির মল্লিকের প্রচ্ছদ এক বিনির্মিত আর্কিটেক্সিং যা পাঠকের উপলব্ধির মস্তিস্কে এঁকে দিতে পারে কল্পনার ইতিবৃত্ত্ব।

যে সকল মূল্যবান প্রবন্ধে শব্দকুঠির এই সংখ্যা সমৃদ্ধ হয়েছে: লোক কবি পাগলা কানাই ও তাঁর রচিত ধুয়া গান- হাসানুজ্জামান, বুদ্ধদেব বসুর জীবনান্দ দাশ- মজিদ মাহমুদ, ওমর আলীর সংলাপধর্মী কবিতা- আশরাফ পিন্টু, আবিদ আজাদ এক গায়ক পাখির নাম- মামুন মুস্তাফা, শিল্প সমালোচনার দৃষ্টিকোন-প্রাসঙ্গিক ভাবনা- শিশির মল্লিক, ফকির লালন সাঁইজীর দেহাত্মবাদ: ধারনার অস্পষ্টতা- অনুপম হীরা মন্ডল।

সবগুলো প্রবন্ধই নিজ নিজ মহিমায় উজ্জ্বল। বিষয়বস্তুকে আতশ কাঁচের জানালার কাছে এনে পাঠকের কাছে উপস্থাপন করেছেন। সবগুলো বিষয়কেই মনে হবে গুরুত্ত্বপূর্ণ এবং নতুন।

গল্প লিখেছেন: শেলী সেনগুপ্ত- মানুষ খোঁজার আনন্দ, রুকসানা রহমান- ভাসাবে সেই ভেলায়, লতিফ জোয়ার্দার- কোন রং নেই, নাজনীন সাথী- আকলিমা মেহেরজান অথবা অন্য কেউ, হানিফ রাশেদীন- খুন। নাজনীন সাথী ও হানিফ রাশেদীন এর গল্প সমাজ বাস্তবতার শৈল্পিক উপস্থাপন।

কবিতা লিখেছেন: সুজন হাজারী, ফকির ইলিয়াস, মৃধা আলাউদ্দিন, সুশান্ত হালদার, শাহনেওয়াজ মিঠু, রীতা আক্তার, এমদাদ শুভ্র, ফারুক আফিনদী, বিনয় কর্মকার, শাহিদা ফেন্সী, অনার্য নাঈম, সিগমা আউয়াল ও তারিক শিপন।
বঙ্গ রাখাল ও সিগমা আউয়াল এর মুক্ত গদ্য মূলত উত্তরাধুনিক গল্প। বলার স্টাইল, দৃশ্যের বর্ণনা, কাহিনীর সিকুয়েন্স লেখকের মুন্সিয়ানা।
সর্বশেষ, পাঠকের জন্য রয়েছে দুটি গ্রন্থ আলোচনা। বঙ্গ রাখাল সংকলিত কবি রফিক আজাদ এর অগ্রন্থিত স্বাক্ষাতকার- আলোচনা করেছেন জোবায়ের মিলন। সুশান্ত হালদার এর লালটিপ গ্রন্থের আলোচনা করেছেন আবুল কাইয়ুম
শব্দকুঠির নিয়মিত প্রকাশনা কাম্য সেই সাথে বানানের প্রতি আরো যত্নবান হওয়ার আকাঙ্খা।