মন পবনের নাও : সোনার নাও পবনের বৈঠা

পড়ায় যখন মন বসে না তখন কল্পনায় উড়ে বেড়াতে ইচ্ছা করে। সে জন্যও চাই নৌকা। মনটা তখন পবনের নাও হতে চায়। সে ইচ্ছার কথা লিখেছেন নদী পাড়ের আরেক কবি। আল মাহমুদ।
আর কি এখন লাগবে ভালো
গণিত কিংবা গদ্য
তার চেয়ে ঐ অঙ্ক খাতায়
বানাও নতুন পদ্য।
মন পবনের নাও হয়ে যাও
বন্ধ রেখে বইটা
শতেক মাঝির পাল খাটানো
জল ফাটানো বৈঠা।

ছোট্ট সোনামনি দাওয়াত করেছে টিয়া পাখিকে। মিষ্টি সবুজ টিয়া পাখি। দাওয়াত খেতে আসবে নায়ে ভরা দিয়ে।
আয় রে আয় টিয়ে
নায়ে ভরা দিয়ে।

টিয়া পাখির নাও দরকার। মাঝপথে গোল বাধালো বোয়াল মাছটা। নাওয়ের প্রতি তারও ভীষণ লোভ। বোয়ালটা তার ইয়া লম্বা গোঁফে বেঁধে নাও নিয়ে দে ছুট! টিয়া পাখির বুঝি আর দাওয়াত খাওয়া হলো না!