কাগজ থেকে কাগজীটোলা : পানি পিটিয়ে নীল

এবারে পানি পিটানোর কাজ। নীচের চৌবাচ্চায় পানি পিটানোর জন্য এক ধরনের হাতল ব্যবহার করা হতো। প্রায় দেড় ঘণ্টা পিটানোর পর আস্তে আস্তে তলায় গাদ জমতো। এভাবে চলতো আরো দু’তিন ঘণ্টা।

তারপর পানি সরিয়ে একজন লোক নামতো চৌবাচ্চায়। অপেক্ষাকৃত হাল্কা গাদ একটি পাইপের সাহায্যে অন্য একটি চৌবাচ্চায় গিয়ে পড়তো। এই পাত্রটির পাশে থাকতো একটি বয়লার বা চুল্লি। তাপ দেয়ার ফলে গাদের ওপর ভাসতো এক ধরনের তেলতেলে পদার্থ। অন্য একটি চৌবাচ্চায় মোটা পশমি কাপড়ে তা ছেঁকে নেয়া হতো।

পরের দিন সকালে সংগ্রহ করা হতো চুয়ানো নীল। এই নীল শক্ত ব্যাগে পুরে ব্যাগসহ চাপ দেয়া হতো। পরে সাবধানে নীল বের করে তিন ঘনফুট করে কেটে রোদে শুকানো হতো। রোদে শুকানোর সময় নীলের গায়ে সাদা পলি জমতো। ব্রাশ দিয়ে তা পরিষ্কার করা হতো। এই হলো নীল তৈরির মজার কৌশল।