নীলের দাদন : তিতুমীরের প্রতিরোধ

তিতুমীর পরিচালনা করলেন জিহাদ আন্দোলন। ইংরেজ ও তার এ দেশী দালালদের জুলুম থেকে এ দেশের মানুষকে রক্ষার জন্য বাঁশের কেল্লা তৈরি করেছিলেন তিতুমীর। নীলকরদের পরিচালিত নীল কুঠিগুলো ছিল তিতুমীরের হামলার লক্ষ্য। বহু নীলকর তিতুমীরের হামলার ফলে কুঠি এবং নীলের চাষ ছেড়ে জান নিয়ে পালিয়েছিল। তিতুমীরের বাহিনীর কাছে নীলকররা বহুবার পরাজিত হয়েছে।

এভাবে নীল বিদ্রোহ ছড়িয়ে পড়ে সবখানে। দীর্ঘদিন তা স্থায়ী হয়। কুঠিয়াল আর বিদ্রোহ প্রজাদের মধ্যে সংঘর্ষ ছিল গুরুতর। সেই গোলযোগপূর্ণ দিনগুলোতে বড়লাট ক্যানিং এক চিঠিতে লিখেছিলেন : দিল্লীতে সিপাহী বিদ্রোহের পুরো সময়টাতে আমি যতটা উদ্বিগ্ন ছিলাম, বাংলাদেশে নীলচাষীদের এক সপ্তাহের বিদ্রোহ আমাকে তারচে’ বেশী উদ্বিগ্ন করে রাখে।

তারপরও দীর্ঘদিন চলে নীলকরবিরোধী সংগ্রাম।