পরবর্তী সকালে বাইরের আওয়াজে হাইডির ঘুম ভাঙে। এটা ছিল পিটার। সে তার ছাগলগুলোকে ডাকছে। হাইডি দ্রুত তৈরি হয়ে বের হয়ে এলো। দাদা স্নোয়ি ও ব্রাউনিকে বের করছিলেন।

“তুমি কি এদের সাথে পর্বতে যেতে চাও?” দাদা হাইডিকে জিজ্ঞেস করেন।

“জি দাদা, আমি যেতে চাই।” সে আনন্দিত। দাদা তাকে পানিতে পরিপূর্ন একটি কাঠের বড় পাত্র দেখালেন এবং তার মুখ ধুতে বললেন। তিনি পিটারকে ভেতরে নিয়ে গেলেন।
“হাইডির জন্য। এগুলো তোমার। এগুলো ব্যাগে রাখো।”
তিনি পিটারের হাতে রুটি ও কিছুটা পনির দিলেন। এগুলোর দিকে তাকিয়ে পিটারেরে চোখ বড় বড় হয়ে গেলো। তার রুটি ও পনিরের চেয়ে এখানে অনেক বেশি আছে।

“আর এই নাও ওর বোল। স্নোয়ির দুধ দোহন করে ওকে দিও।” বললেন দাদা।

দুটি শিশু তারপর পর্বতের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করলো। পিটার সব সময় ছাগলগুলোকে এমন স্থানে নিয়ে যেতো যেখানে প্রচুর পনিমানে ঘাস পাওয়া যেতো।

“এ জায়গাটা খুব সুন্দর।” বললো হাইডি।

সূর্যের তীব্র আলোতে এখানকার ঘাসগুলো খুব সবুজ। সবখানেই প্রচুর পরিমানে পার্বতীয় ফুল। পর্বতের অনেক উপরে ঘনজমাট বাঁধা তুষারের স্তুপ।

ছাগলগুলো মনের আনন্দে দৌড়ায়। ঘাস খায়। হাইডি এক ছাগল থেকে অন্য ছাগলের কাছে দৌড়ে যায়। তাদের সাথ বন্ধুত্ব করে।

“স্নোয়ি ও ব্রাউনি সবচেয়ে সুন্দর।” বলে হাইডি। “আমি জানি আল্ম অপা তাদের ভালোভাবে গোসল করায় ও যত্ন করে।” পিটার বলে।

পিটার স্নোয়ির দুধ দোহন করে হাইডি বোল পূর্ণ করে। হাইডি মজা করে খায়। পিটার ব্যাগ থেকে রুটি ও পনির বের করে। হাইডির জন্য বেশি। পিটারের জন্য কম। হাইডি অল্প রুটি খেয়ে বাকিটা পিটারের দিকে এগিয়ে দেয় এবং বলে, “আমার পনিরটাও তুমি খেতে পারো।”
পিটার বিশ্বাস করতে পারে না। এত বড় পনিরের টুকরা সবটাই তার জন্য? কিন্তু হাইডি পনিরটা পিটারের হাতে দেয় আর সে দ্রুত খেয়ে ফেলে।

“তুমি কি রোজই ছাগল নিয়ে বেরোয়?” হাইডি পিটারকে প্রশ্ন করে।

“হাঁ। কিন্তু শীতের সময় না। তখন আমি স্কুলে যাই।”

“তুমি স্কুল পছন্দ করো?”

“না। আমার মোটেই ভালো লাগে না।”

বিকাল গড়িয়ে গেছে। সূর্যও অস্ত যাচ্ছে। সোনালি আলোতে সবকিছু ঢেকে যাচ্ছে। হঠাৎ হাইডি লাফিয়ে ওঠে। বলে,

“পিটার, পিটার। এটা পুড়ে যাচ্ছে। পর্বতগুলো পুড়ে যাচ্ছে। আকাশ, তুষার সবকিছুই লাল। দেখো, ওখানে আগুন লেগেছে।”
“না, এটা আগুন নয়। এটা সবসময় এমনই।”

“অনেক সুন্দর। ইশ এটি হারিয়ে যাচ্ছে। ওহ সবটাই চলে গেলো। আহা কী সুন্দর ছিল।”

“আগামিকালও তুমি এমনটা দেখতে পাবে।” পিটার তাকে বললো আর তাতে হাইডি পুনরায় খুশি হলো।

এখন যাওয়ার পালা। শিশুরা ও ছাগলগুলো পাহাড় থেকে নেমে দাদার বাড়িতে পৌঁছে গেলো।

“আগামিকাল আবার এসো।” পিটার বলে। সে ভাবছিল হাইডির রুটি আর পনিরের কথা।